Cure diseases Stone, Mantra & Talisman (রোগ আরোগ্যের রত্ন-যন্ত্র ও কবচ)

রোগ আরোগ্যের রত্ন-যন্ত্র ও কবচঃ

রোগের নাম                                      রত্ন                         যন্ত্র                       কবচ

  1. অর্শ                                 নীলা/গোমেদ              অপরাজিতা              দক্ষিণাকালী
  2. অগ্নিদগ্ধ                                 প্রবাল                         মং                    বগলা মুখী
  3. অস্থির রোগ                         চনী/নীলা                       সং                       ইন্দ্র
  4. অস্থির টিউমার                      গোমেদ                        ছ্রীং                      বরাহ
  5. অর্ব্বুদ                            নীলা/শ্বেতপ্রবাল                  শ্রীং                       সূর্য্য
  6. কণ্ঠে ক্যান্সার                         পান্না                         ক্রীং                   নীলতারা
  7. অণ্ডকোষের/পীড়া                     মুক্তা                         হ্রীং                    কনকধারা
  8. অনিদ্রা                              চুনী/গোমেদ                   কৃষ্ণা                  ত্রিপুরাসুন্দরী
  9. অন্ত্রপীড়া                           পীতপোখরাজ                   হ্রীং                      তারা
  10. অন্ত্রে ক্যান্সার                   প্রবাল/পোখরাজ                নীলতারা                   হ্রীং
  11. পাকস্থলীতে ব্যাথা               পীতপোখরাজ                 অন্নপূর্ণা                 করুণাময়ী
  12. পাকস্থলীতে ক্যান্সার           পোখরাজ/চুনী                  শ্যামা                      শ্যামা
  13. একশিরা                              নীলা                           শৌং                   শ্মশানকালী
  14. টন্‌সিল                             মুক্তা/পান্না                       চন্দ্র                       কৃষ্ণা
  15. আকস্মিক দুর্ঘটনা                   প্রবাল                       গোবিন্দ                    কৃষ্ণাষ্টক
  16. আমাশয়                      পীত পোখরাজ প্রবাল             ছিন্নমস্তা                    তারা
  17. আমরাত                            ক্যাটস্ আই                      হ্লীং                     কন্যাণেশ্বরী
  18. বিসর্প                               ক্যাটস্ আই/নীলা              কালী                       কালী
  19. মূত্রাশয়ে                             পাথর চুনী                      সূর্য্য                         ইন্দ্র
  20. মূত্রাশয়ে যন্ত্রনা                        প্রবাল                         ইন্দ্র                         অগ্নি
  21. মূত্রাশয়ে ক্যান্সার                    নীলা/গোমেদ              কালভৈরবী                  কালী
  22. মলদ্বারে ক্যান্সার                     মুক্তা/নীলা                  ভৈরবী                     বিদ্যা
  23. চর্ম্মপীড়া                               ক্যাটস্ আই                ধূমাবতী                   মহাকালী
  24. উদরী                                  মুক্তা/পোখরাজ              শ্রৌং                       ভগবতী
  25. উদরাময়                                 গোমেদ                     স্ত্রীং                        ছিন্নমস্তা
  26. উপদংশ                                 নীল/চুনী                   বরুণ                       অশোকা
  27. নাসিকার রোগ                           হীরা                      ইন্দ্র                           অগ্নি
  28. বুকে ব্যথা                                  পান্না                     শ্রী                            কালী
  29. শ্বাসনালীতে ক্যান্সার               শ্বেত পোখরাজ              সং                         ভুবনেশ্বরী
  30. হাঁপানি                                    মুক্তা/পান্না             অন্নদা                         সিদ্বেশ্বরী
  31. ফুস্‌ফুসে ক্যান্সার                       পান্না/গোমেদ         নলেশ্বরী                          যমুনা
  32. জিহ্বায় ক্যান্সার                         পান্না/প্রবাল           সর্ব্বেশ্বরী                      কর্পূরগন্ধা
  33. লিভার ক্যান্সার                        পোখরাজ/নীলা           হ্রীং                            ধনদা
  34. হর্টে ক্যান্সার                               পান্না               নীল সরস্বতী                      সুন্দরী
  35. পিত্তথলীতে ক্যান্সার                       চুনী                    দুর্গা                              দুর্গা
  36. গণোরিয়া                            প্রবাল/চুনী/হীরা          ধূমাবতী                           ইন্দ্র
  37. জরায়ুতে ক্যান্সার                      হীরা/পান্না             কামাখ্যা                            ত্রীং
  38. লিঙ্গে ক্ষত                                হীরা/মুক্তা                 ত্রীং                          ভুবনেশ্বরী
  39. ধ্বজভঙ্গ                                   হীরা/চুনী              কামাখ্যা                          হ্রীং
  40. কুষ্ঠ                                        হীরা/মুক্তা             ছিন্নমস্তা                           হ্লীং
  41. নেত্র রোগ                                    চুনী                    সূর্য্য                            ইন্দ্র
  42. দৃষ্টিহীনতা                                মুক্তা/নীলা               শ্যামা                           শ্রীং
  43. জন্ডিস্                                    পীত পোখরাজ         নীলসরস্বতী                    স্ত্রীং
  44. বাত                                         চুনী/নীলা            বিশল্যকরণী                  শ্যামা
  45. মৃগীরোগ                                 নীলা/গোমেদ           নীলতারা                    সরস্বতী
  46. যক্ষ্মা                                   শ্বেত প্রবাল/মুক্তা       নীল সরস্বতী                  অট্টহাসা

বিঃদ্রঃ- এই সব ব্যাধি মুক্তির রত্ন, যন্ত্র ও কবচ আমি পেয়েছি কামাখ্যাতে বাস করবার কালে এক ভৈরবীর কাছ থেকে। তিনি দীর্ঘদিন ধরে আমাকে পরীক্ষা করে এই তথ্যসমূহ উদার হৃদয়ে দান করেন। ইনি ছিলেন ললামভূতা অপাপবিদ্ধা সাধিকা।এককালে কোলকাতার একটি নামকরা বিদ্যালয়ে লেখাপড়া শেখেন। জ্যোতিষ ও তন্ত্রশাস্ত্রে ছোটবেলা থেকেই মন। নিজের অমতে পিতা অর্থলোভে এক অপগণ্ডের সঙ্গে বিয়ে দেন। বিয়ের ছয় মাসের মধ্যে স্বামী পলাতক হন। এই নারী দিব্য জীবন লাব করবার জন্য একাকিনী বেরিয়ে পড়েন ভারততীর্থ ঘুরতে। চট্টগ্রামে চন্দ্র পর্বত থেকে শুরু করে গোমুখ পর্যন্ত বিচরণ করেন। তারাপীঠে ১২ বছর বাস করে আসেন কামাখ্যাতে। সেখানে নির্জন এক খুপরীতে থাকতেন।

Remove the Enemy & Disorder (শত্রু ও মারাত্মক ব্যাধি দূর করা)

শত্রু ও মারাত্মক ব্যাধি দূর করবার জন্য রত্ন ও যন্ত্রঃ

  1. মেষ লগ্নের জন্য পান্না ৪/৫ রতি বা বা ভুবনেশ্বরী যন্ত্র।
  2. বৃক্ষ লগ্নের জন্য হীরা ৩/৪ রতি বা ত্রিপুরেশ্বরী যন্ত্র।
  3. মিথুন লগ্নের জন্য পীত পোখরাজ ৫/৬ রতি বা তারা য্ন্ত্র।
  4. সিংহ লগ্নের জন্য নীলা ৩/৪ রতি বা মহাকালী যন্ত্র।
  5. কর্কট লগ্নের জন্য পীত পোখরাজ ৫/৬ রতি বা তারা যন্ত্র।
  6. কন্যা লগ্নের জন্য গোমেদ ৬/৭ রতি বা ছিন্নমস্তা যন্ত্র।
  7. তুলা লগ্নের জন্য ক্যাটস্ আই ৫/৬ রতি বা ধূপবতী যন্ত্র।
  8. বৃশ্চিক লগ্নের জন্য শ্বেত প্রবাল ৭/৮ রতি বা জগদ্ধাত্রী যন্ত্র।
  9. ধনু লগ্নের জন্য সাদা পোখরাজ ৫/৬ রতি বা দক্ষিণা কালী যন্ত্র।
  10. মরক লগ্নের জন্য সাদা পোখরাজ ৫/৬ রতি বা দক্ষিনা কালী যন্ত্র।
  11. কুম্ভ লগ্নের জন্য মুক্তা ৪/৫ রতি বা ত্রিভুবনেশ্বরী যন্ত্র।
  12. মীন লগ্নের জন্য চুনী ৩/৪ রতি বা শ্যামা যন্ত্র।

Remove the money problem (অর্থকষ্ট দূর করবার রত্ন ও যন্ত্র)

আপনার অর্থকষ্ট দূর করবার রত্ন ও যন্ত্রঃ

  1. আপনার মেষলগ্ন হলে আপনি হীরা ৩/৪ রতি প্লাটিনামে ধারণ করুন। অথাব শ্রীং যন্ত্র ধারন।
  2. আপনার বৃষলগ্ন হলে আপনি পান্না ৪/৫ রতি সোনায় ধারণ করুন। অথবা ভুবনেম্বরী যন্ত্র ধারণ করুন।
  3. আপনার মিথুন রগ্ন হলে আপনি মুক্তা ৫/৬ রতি রুপায় ধারণ করুন। অথবা ক্লীং যন্ত্র ধারণ করুন।
  4. আপনার কর্কট লগ্ন হলে আপনি চুনী ৩/৪ রতি প্লাটিনামে ধারণ করুন। অথবা সূর্য যন্ত্র ধারণ করুন।
  5. আপনার সিংহ লগ্ন হলে আপনি শ্বেত প্রবাল ৭/৮ রতি রুপায় ধারণ করুন। অথবা হুলীং যন্ত্র ধারণ করুন।
  6. আপনার কন্যা লগ্ন হলে আপনি স্ফটিক রত্ন ৪/৫ রতি সোনায় ধারণ করুন। অথবা হ্রীং যন্ত্র ধারন করুন।
  7. আপনার তুলা লগ্ন হলে আপনি অরুন বর্ণ প্রবাল রত্ন ১১/১২ রতি ধারণ করুন। অথবা “হ্লীং ক্রীং” যন্ত্র ধারণ করুন।
  8. আপনার বৃশ্চিক লগ্ন হলে আপনি গোমেদ রত্ন ৬/৭ রতি রুপায় ধারণ করুন। অথবা ক্রীং যন্ত্র ধারণ করুন।
  9. আপনার ধনু লগ্ন হলে আপনি নীলা ৪/ সাড়ে ৪ রতি সোনায় ধারণ করুন। অথবা ক্রীং যন্ত্র ধারণ করুন।
  10. আপনার মকর লগ্ন হলে আপনি ক্যাটস্ আই ৫/৬ রতি সোনায় ধারণ করুন। অথবা ক্রৌং যন্ত্র ধারন করুন।
  11. আপনার কুম্ভ লগ্ন হলে আপনি পীতি পোখরাজ ৫/৬ রতি সোনায় ধারণ করুন। অথবা নীলতারা যন্ত্র ধারণ করুন।

আপনার মীন লগ্ন হলে আপনি নীলা ৩/৪ রতি সোনায় ধারণ করুন। অথবা ষোড়শী যন্ত্র ধারণ করুন।

Use the Stone & Necklace to get back to luck (রত্ন ও মালাদির দ্বারা ভাগ্য ফেরান)

রত্ন মালাদির দ্বারা ভাগ্য ফেরানঃ

সিকিমের ও হেমিসের তান্ত্রিক বৌদ্ধদের গুস্ফায় দেখেছি নানারকম পাথরের মালা জপ্ করতে। শুধু তারা কেন, হিন্দু তান্ত্রিক, বৈষ্ণব, শৈব, মুসলমান ফকীর এবং রোমান ক্যাথলিক খ্রীস্টানরাও মালা জপ্ করেন। আমি আগেই বলেছি ঈশ্বরকে লাভ করতে গেলে সর্বাগ্রে গ্রহদোষকে কাটাতে হবে। কারণ গ্রহদোষ থাকলে ঈশ্বরের আর্শীবাদ পাওয়া দুরুহ হয়ে ওঠে। গ্রহদোষ কাটাবার জন্য নানরকম প্রক্রিয়া আছে।তার মধ্যে মালা ব্যবহার ও মালা জপ্ অন্যতম। মুক্তার মালা সম্পর্কে আমি আগেই বলেছি। আদি থেকে অনেকে স্ফটিক মালা ব্যবহার করেন। এবং এই বিষয় আমি উপদেশ লাভ করি নেপালে একজন তান্ত্রিক যোগীর নিকট। তিনি আমাকে বলেন-

“পদ্মবীজাদিভির্মালা বহির্যাগে শৃণুষ্ব তাঃ।

রুদ্রাক্ষ-শঙ্খ-পদ্মাক্ষ-জীবপ্রত্রক-মৌক্তিকৈঃ।।

স্ফটিকৈর্মণিরত্নৈশ্চ সৌবর্ণৈর্বিদ্রুমৈস্তথা।

রাজতৈঃ কুশমূলৈশ্চ গৃহস্থস্যাক্ষমালিকা।।”

তুমি মনে রাখবে- “পদ্মবীজের মালা সবচেয়ে প্রশস্ত। রুদ্রাক্ষ, শঙ্খ, পদ্মবীজ, জীবপুত্রিকা, মুক্তা, স্ফটিক, মণি, রত্ন সুবর্ণ, প্রবাল, রৌপ্য এবং কুশমূল গ্রহীদের পক্ষে শ্রেষ্ঠ জপ্ মালা।

Mantra-মন্ত্র

মন্ত্রঃ

দেড়যুগ আগের কথা। হিমালয়ের জটাজাল এলিয়ে পড়েছে কামাখ্যা পাহাড়ের কোলে। বিপাশা, শুকদেব, শতদ্রু বা কর্ণালী আমার তৃষ্ণা মেটাতে পারলো না। হিমালয়ের শতশত তীর্থপথের পথিক আমি পথে পথে পেয়েছি বাঁধা। পাই তাতে ক্লান্ত নই। আমি চাই আমার সেই বস্তু- যা অপ্রাপ্য বলে কথিত। কোলকাতার কালীঘাট, কেওড়াতলা, নিমতলা, কাশীপুর, শ্মশান ঘাট ধরে এই গঙ্গার তীরে শান্তিপুর, নবদ্বীপ, উদ্ধারণপুর ঘাটের মহাশ্মশানগুলিতে ঘুরলেম। দেখলেম বহু সাধক, সাদিকা, শ্মশানচারী শ্মশানচারীণী, ভৈরব-ভৈরবী- তারা দিলেন অনেক মন্ত্র-তন্ত্র-কবচ-যন্ত্র। কিন্তু তাদের ব্যবহার বিধি জানালেন না।তখনো তারাপীঠে যাই নি। সোজা গঙ্গার চড়াই ও উৎরাই দিয়ে পাটনা, বেনারস, এলাহাবাদ, হরিদ্বার। না-মনোবাঞ্ছা পূর্ণ হলো না। তবে হ্যাঁ- হরিদ্বারের চণ্ডীপাহাড়ে কোলো এক সাধুর স্নিগ্ধ আলিঙ্গন পেলেম। তিনি বললেন- “যা, তুই তারাপীঠে।” তার কথা শুনেওশুনিনি প্রথমে। পাঞ্জাব-হিমাচল প্রদেশ, জম্মু-কাশ্মীর ঘুরে এলুম প্রয়াগে। সেখান থেকে বেনারস। তারপর একদিন তারাপীঠে। তারামায়ের চরণতলে দ্বারকানদীর চওড়া বালুচরে ক্যাকটাস্ গাছগুলি অসুর মুণ্ডের মতো ছড়িয়ে আছে। আর শ্মশানের পোড়া কাঠ, আধ্‌পোড়া অস্থি, করোটি নিয়ে দূরে দূরে ডেরা পেতেছেন তান্ত্রিকরা আউল-বাউল আর অঘোরপন্থীরা। সেখানে একদিন নিশীথ রাতে কার রুদ্রসুন্দর কণ্ঠসুরে আমার ধ্যানের জড়তা কাটলো।
“…………সিংহসনমনন্যধীঃ।
তত্র সংভাব্যতে শয্যা জ্ঞানানন্দস্বরুপিণী।।
শিবং তত্র বিভাব্যাথ সর্ব্বালঙ্কারভূষিতম্।
দিগম্বরং মহাকায়মুন্মত্তং কামভাবতঃ।
শয্যায়ামূর্দ্ধলিঙ্গঞ্চ ভাবয়েৎ সাধকাগ্রণীঃ।।
এ-কার কণ্ঠস্বর?
আসন থেকে উঠে পড়লুম। অন্ধকারে পথ চিনি না। সেই উদাত্ত কন্ঠস্বর যে আমার গতিপথকে চিনিয়ে দিচ্ছে। ঐ-ঐ যে দুটো জ্যোতি
জ্বলছে নিবিড় আঁধারে। সে দুটি জ্যোতি হল জ্যোতির্ময় সাধকের নেত্রদ্বয়। তিনি যে আমাকে কিছু বলবার জন্যই এই পাঠ করছেন। মাথানত করে দাঁড়ালেম তার সামনে। একটা ধুনি জ্বলছে। তার ম্লান আলোতে দেখলুম- কী জ্যোতিভরা মূর্তি তাঁর। বললেন,
“মন্ত্র জপ্ কর। মন্ত্র শেখা নর-নারীকে। সব ভাগ্যদোষ কেটে যাবে। আগে ধ্যান-পরে মন্ত্র। যা- যা।”
-কোথায় যাবো?
-কামাখ্যায়।
এই সেই কামাখ্যা।
এই সেই তন্ত্রের প্রাচীন পীঠস্থান।
এখানেই শিব সাধনা করেছেন। এখানে মীননাথ বন্দী হয়েছেন। এখানেই গোরক্ষনাথ যোগসাধনায় সিদ্ধি লাব করেছেন। এখানেই আমি এক মহাতান্ত্রিক বাবার মুকে শুন্‌লেম্-
“রক্তবস্ত্রাং বরোদ্যুক্তাং সিন্দুরতিলকান্বিতাম্।
নিষ্কলঙ্কাং সুধাধাম- বদনকম লোকজ্জ্বলাম্।।
স্বর্ণাদিমণি মাণিক্যভূষণৈভূষিতাং পরাম্।
নানারত্নাদি- নির্ম্মাণ- সিংহাসনোপরিস্থিতাম্।।
হাস্যবক্ত্রাং পদ্মরাগ- মণিকান্তিমনুত্তমাম্।
পীনোত্তুঙ্গ- কুচাং কৃষ্ণাং শ্রুতিমূল গতেক্ষণাম্।।
কটাক্ষৈশ্চ মহাসম্পদ্দায়িনীং হরমোহিণীম্।
সর্ব্বাঙ্গুসুন্দরীং নিত্যাং বিদ্যাভিঃ পরিবেষ্টিতাম্।।”
মনে হল এখানেই আমার মনোবাঞ্ছা পূর্ণ হবে। এখানেই বেদ তন্ত্র-মন্ত্র সবের সার লাভ হবে। এখানেই জ্যোতিষ বিদ্যা শিক্ষা সার্থক হবে।
এখানেই এক ভৈরবী আমাকে শিক্ষা দেন। তাই এখানে ব্যক্ত করছি।তিনি বললেন, রত্ন-কবচ-যন্ত্র ও স্তোত্র পাঠ তন্ত্রেরই অঙ্গ এবং ঋগ্বেদ থেকে মহাভারত পর্যন্ত যে সব মন্ত্র ও স্তোত্র দেখতে পাও সবই বগবানের আশীর্বাদ পেতে হলে চাই তন্ত্রের উপর নির্ভরশীলতা। শোনা মহাভারতের বনপর্বে যুধিষ্ঠিরকে মার্কণ্ডেয় মুনি কার্তিক স্তোত্র শোনাচ্ছেন। আর এই স্তোত্র পাঠের কি কি ফল লাভ হয় তাও ব্যক্ত করেছেন।এবং এইসব গ্রহরা কার্তিকের অধীন। মহাভারতে তা পাওয়া যায়। মহাভারতে “পুরুষাশ্চৈব যে গ্রহাঃ”তা হল স্কন্দগ্রহ। এই পুরুষ গ্রহদের মন জয় করবার জন্য স্থানীয় দ্রব্য, ধূপ, কজ্জ্বল, বলিদান এবং অর্ঘ্য দিয়ে কার্তিকের পূজা করতে হয়। এবং কার্তিকের আদেশে এই সব গ্রহরা নরনারীর মঙ্গল, আয়ু ও বল বৃদ্ধি করে।
মহাভারতের বনপর্বে আরো বলা হয়েছে, “নরনারীর ষোড়শ বছর বয়স পর্যন্ত স্ত্রী গ্রহরা তাদের অনিষ্ট করবার জন্য তৎপর থাকে। এবং ষোল বছর বয়সের পর পুরুষ গ্রহরা তাদের অমঙ্গল করাবার চেষ্টা করে। এই সব গ্রহকে বেদব্যাস কয়েকটি ভাগে ভাগ করেছেন দেখো।
যে নরনারী জাগরিত অবস্থায় বা ঘুমের ঘোরে স্বপ্নে দেবতা দেখে ও সত্ত্বর উন্মত্ত হয় তখন জানবে দেবগ্রহ তাকে ভর করেছে।
আর জাতরিত বা ঘুমন্ত অবস্থায় যে পিতৃলোক দেখে তাকে পিতৃগ্রহ ভর করেছে।
যে লোক সর্বদা স্বপ্নের ঘোরে ভুল বকে তাকে সিদ্ধ গ্রহ ভর করেছে।
আর যে জাগ্রত অথবা ঘুম ভয়ের স্বপ্ন দেখে তাকে রাক্ষস গ্রহ বলেছেন।
এই সকল গ্রহদের তিন ভাগে ভাগ করা হয়। যথাঃ-
ক্রীড়াভিলাসী গ্রহ, ভোলাভিলাষী গ্রহ এবং কামাভিলাষী গ্রহ।
এই জন্য সংযত চিত্তে, ইন্দ্রিয়দমনশীল, পবিত্র, সদা আলস্যহীন আস্তিক ও মহাদেবের প্রতি আস্থাশীল হয়ে কার্তিকের পূজা করলে সব গ্রহ ভয় দূর হয়। প্রতি নর-নারীর উচিত কর্তিক যন্ত্র ধারণ করা।
মহাভারতে বনপর্বে মার্কণ্ডেয় মুনি যে “কার্তিক গাথা” গেয়েছেন তা সর্বদা মনে রাখবে।

Use the Stone, Mantra & Talisman to get back to luck (রত্ন, মন্ত্র ও কবচে ভাগ্য ফেরান)

রত্ন মন্ত্র ও কবচে ভাগ্য ফেরানোঃ

রত্ন-মন্ত্র বর্ণনাঃ

রত্ন ব্যবহার হাজার হাজার বছর ধরে চলে আসছে। সভ্যতার আলোকে উদ্ভাসিত হয়েছে যখন যে সব দেশ, নিজেদের নব নব রুপে সাজানোর জন্য নরনারী তখন থেকে সোনা রুপার গহনার সঙ্গে রত্ন ধারণ করা শুরু করে। ইতিহাস পূর্বকালে আদিম নরনারী বিবস্ত্রাবস্থায় বসবাস করলেও, তারা তাদের নগ্ন অঙ্গ-প্রত্যঙ্গে নানা প্রকার উল্কি আঁকতো, আর কণ্ঠে, বাহুতে এবং কোমরে পরতো নান প্রকার জীবজস্তর হাড়, দাঁত প্রভৃতি। সঙ্গে ফলের বীজও ধারণ করতো। এবং দেহের উল্কি থেকে শুরু করে কণ্ঠাদির হাড় তারা দলের পুরোহিতদের দ্বারা মন্ত্রপূত করে নিতে ভুলতো না। কারণ সেই সভ্যতাবিহীন মানুষের দল তখন থেকেই মনে মনে দৃঢ় বিশ্বাস করতো- এইগুলি মন্ত্রের দ্বারা শুদ্ধ করে নিলে কোনো অপদেবতা, কোনো দুর্যোগ এবং কোনো বাধা বিপত্তি তাদের ক্ষতি সাধন করতে পারবে না। এমন কি তারা নিবিড় অরণ্যের মধ্যে নানা প্রকার সরু- মোটা লতা দেহে ব্যবহার করতো মন্ত্রশুদ্ধি করে। সে যুগের মানুষ তাদের ক্ষীণ বুদ্ধি দৃষ্টিতে জেনেছিলো, জন্মের মুহূর্ত থেকে তার জীবনে নানা কষ্ট ও বাধা প্রতীক্ষা করছে তাকে আঘাত হানবার জন্য। কিন্তু সেই বাঁধাগুলির হাত থেকে ত্রাণ পাবার জন্য সে নানা মন্ত্র শেখে ও নানা বস্তু ব্যবহার করে। আর দলের পুরোহিতের স্বল্পজ্ঞান তাদের জীবনকে সুন্দর করবার গোপন কথা হয়তো জেনেছিলো নিভৃতে নানা চিন্তার দ্বারা।
এই মানব-মানবী নানরকমের পাথরও দেহে পরতো।
তারপর বহুকাল পার হল। তাম্র প্রস্তর যুগের পর থেকেই মানবজাতি নানা দতপ্রকার কারুকার্য করা অলংকার ও তার সঙ্গে রত্ন ব্যবহার করে। এই ব্যবহার নিছক দেহ-সজ্জা নায়- সেই ফেলে আসা দিনের সরণী ধরে তাদের মনে প্রবেশ করেছিলো ভবিষ্যৎ জীবনের অজানা আতঙ্কের অবর্ত থেকে উদ্ধার পাবার প্রয়াশ। তাই তারাও পূর্বপুরুষদের প্রদত্ত মন্ত্রশুদ্ধিতে প্রাণবন্ত অলংকার ও রত্নের ব্যবহার রীতি ও নানা মন্ত্র এবং মূল ধারণ করার আগ্রহে অগ্রাহান্বিত হয়ে পড়ে।
বিশ্বের সুপ্রাচীন সভ্যতা সিন্ধুজনপদ সভ্যতার যুগে সেই মানব মানবী ব্যাপকভবে নানা ধাতুর অলংকার ও রত্ন ধারণ করতো; করতো নান দেব-দেবীর পূজা, নানা রকমের যন্ত্রের দ্বারা নিজেদের রক্ষা করবার চেষ্টা। তার সেঙ্গ এলো মানব জাতিকে ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি করবার জন্য দৈবের সাহায্য লাভের প্রচেষ্টা।সেটাই লিঙ্গদেববাদ অথবা লিঙ্গ-যোনির নিবিড় আরাধনা।যা সূর্য রশ্মির মতো ছড়িয়ে পড়লো মেসোপটেমিয়া, সুমেরীয়, কাবালা ও মিশরের বুকে। তখনো কিন্তু বহিরাগত আর্যদের কোন স্পন্দন ভারতের বুকে পড়েনি।
সিন্ধুজনপদ সভ্যতাকে যদি ঐতিহ্যমণ্ডিত সভ্যতার ঊষালগ্ন ধরা হয় তাহলে দেখবো সেখান থেকে জ্যোতিষ, তন্ত্র-মন্ত্র ও পূজার অরুণের হলুদ ঝরা দিন। কোথায় তখন বহিরাগত আর্যদের আসার আশা? মনে রাখতে হবে এবং আমি বার বার বলছি সিন্ধুজনপদ সভ্যতাই পৃথিবীর বুকে যে নতুন ও চিরন্তন প্রথার সূত্রপাত করলো তা হলো তন্ত্র ও মন্ত্রের পরিপূর্ণতা। আদিম মানুষ নগ্নদেহে বৃক্ষের রস দিয়ে যে সব উল্কি পরতো এবং দেহে জীবহাড় ও দাঁত পরতো তা কিন্তু তন্ত্রের উদয়লগ্ন। মারণ, উচাটন, বশীকরণ, শান্তি ও মিলনের প্রচেষ্টা তার মধ্যে ছিলো তাতে সন্দেহ নেই। সেই বস্তুকেই আরো কুলীন করলো সিন্ধুজনপদ সভ্যতা। এই সভ্যতার যে লিপি পাঠ এখনো উদ্ধার হয়নি তাতে এটা কিন্তু প্রমাণিত হয় না- তারা বহিরাগত আর্যদের চেয়ে অনর্বর চিন্তাশক্তি নিয়ে বাস করতো। তারা যে অট্টালিকা, যে উপাসনাগার, যে মাটির মূর্তি ব্রোঞ্জের মূর্তি ও অলংকার এবং যে সব প্রতীক ব্যবহার করতো বা তৈরি করতো তাতে তাদের চিন্তাশক্তির সূক্ষ্মাতাই বোঝায়। এবং তারা শিখেছিলো অতি গোপন বিদ্যা ও পূজা। তা হলো জ্যোতিষ ও তন্ত্র।
পাশ্চাত্য ঐতিহাসিকরা ভারত সম্পর্কে সর্বদাই ইতরবিশেষ কথা বলে চলেন। তাঁরা যতই প্রমাণ করবার চেষ্টা করেন বহিরাগত আর্যরাই ঋগ্বেদ রচনা করে ভারতের আদিম মানুষকে সভ্যতার আলোকের সামনে এনেছেন, ততই এই সব পণ্ডিতদের নয়ন সম্মুখে প্রতিভাত হয় সিন্ধুজনপদ সভ্যতা। তখন আমাদের মনে হয় এই সব প্রাচ্যবাদীরা ককত সংকীর্ণমনা ও কত নীচু জাতের নিন্দুকের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছেন।
বেদ বহিরাগত আর্যদের সৃষ্টি হলেও তাদের উপর সিন্ধুজনপদ সভ্যতার প্রভাব অনেক পড়েছে। আমাদের মনে রাখতে হবে- বহিরাগত আর্যরা ছিলো পশুপালক ও কৃষিসভ্যমানব। তারা তখনো নগর সভ্যতাকে চিন্তা করতে পারেনি। আর অপরদিকে সিন্ধুজনপদ সভ্যতা একাধারে নগর জীবনের সঙ্গে কৃষিজীবন ও পশুপালকের জীবনের সমন্বয় সৃষ্টি করতে সক্ষম হয়েছিল। তাই তারা জ্যেতিষ ও তন্ত্রকে এতোখানি প্রকাশ করতে পেরেছিলো।
বেদের আর্যরা অবশ্য ভাগ্যকে সুপ্রসন্ন করাবার জন্য উন্মুখ হয় কিন্তু এই বিদ্যা শিখেছিলো সিন্ধুজনপদ সভ্যতার কাছ থেকে।তারা অলংকার ও নানাবিধ রত্নও মন্ত্রপূত করে ব্যবহার করা শিখেছিলো। তাদের যে ভবিষ্যৎ বক্তা তারা বরতে ঋষি নাম পেলেও পশ্চিম এমিয়াতে এরা ছিলে Magi নামে পরিচিত।এই সম্প্রদায় নর-নারীর ভাগ্য বিচার করে অশুভ ভাবকে নষ্ট করবার জন্য রত্ন, ধাতু ও মন্ত্র দ্বারা শোধিত বস্তু ব্যবহার করতে দিতেন। এই জন্য তাঁরা ছিলেন সমাজে সবার পূজ্য।
এই সব তন্ত্রমন্ত্র এবং রত্ন ধারনের প্রচার বৈদিক যুগেও ছিলো। আমাদের মনে রাখা দরকার বেদের ক্রিয়াকাণ্ডই তন্ত্রের বাহক মাত্র। পার্থিব বস্তুকে সুন্দরভাবে লাভ করাই এই ক্রিয়াকাণ্ড। এই ক্রিয়াকাণ্ডেরে মন্ত্রলোতে আমরা দেখি-ইন্দ্র, বরুণ, রুদ্র প্রভৃতি দেবতার কাছে শত্রুবিনাশের জন্য অধিক শস্যের জন্য, ভূমির ও নারীর উর্বরতা শক্তি বৃদ্ধির জন্য, ভাগ্যকে সুপ্রসন্ন করবার জন্য আকুল প্রার্থনা ও তার সঙ্গে সঙ্গে যজ্ঞে হবিঃ দোয়া এই দাও দাও মন্ত্রের মধ্যে তন্ত্রের হিরণ্যগর্ভ মত্যের দ্বারা আবৃত হয়ে আছে। বিভিন্ন রোগ থেকে উদ্ধারের জন্য নানা মণির ব্যবহার, নানা মন্ত্রের দ্বারা হোম করা ও কবচ ধারন প্রথা সুন্দর ও স্পষ্ট হয়ে উঠেছে অথর্ববেদে। সেখানে জ্যোতিষ ও তন্ত্র নিজস্ব আসন লাভ করেছে। যেমন অথর্ববেদের দশম খণ্ডের প্রথম অণুবাকে দেখি- বরণ নামক মণির প্রশংসা, ধারণবিধি, সর্পবিষের মন্ত্র ও চিকিৎসা, শান্তি কর্মানুষ্ঠান, তৃতীয় ও চতুর্থ অণুবাকে দেখি শক্রনাশাদি কাজে নানারকম মন্ত্র ও মণি ধারণের বিধান; ঙ্কম্ভ নামক সনাতন দেবতার স্তুতি ও শ্রেষ্ঠত্ব প্রতিপাদন, পঞ্চম অণুবাকে শতৌদন যজ্ঞের মন্ত্রাদি এবং দেবীরুপা গভীর স্তুতি। উক্ত বেদের একাদশ কাণ্ডের প্রথম, দ্বিতীয়, তৃতীয় ও পঞ্চম অনুবাকে আয়ুষ্কামনায় বিবিদ মন্ত্র, শত্রুজয়ের মন্ত্র ইত্যাদি। শুধু তাই নয়-অথর্ববেদে দেখি বন্ধ্যা নারীর পুত্র হবার উপায়, মন্ত্র, যজ্ঞ, মণি ধারণ, মহাশান্তিকর্ম, অভয় প্রার্থনা, শস্যগৃহের রক্ষা, কবচ, জঙ্গিড়মণি ধারণ প্রভৃতির মন্ত্র।
মহাভারতের যুগে জ্যোতিষ শাস্ত্রও তন্ত্র শাস্ত্র বিরাটভাবে উৎকর্ষতা লাভ করেছিলো।তা আমি এই গ্রন্থের মধ্যে আলোচনা করেছি।এখন আমি আপনাদের কাছে রত্ন ও মন্ত্রের গোপন কথার প্রথম পাঠ দেবার চেষ্টা করবো।তা হলো আমার দীর্ঘদিনের অভিজ্ঞতা, পুরাণ ইতিহাস ও তন্ত্র গ্রন্থ থেকে নেওয়া।

ব্যবহারযোগ্য রত্নাদির নামঃ

আমরা চুনী, চন্দকান্তমণি, প্রবাল, পান্না, পোখরাজ, হীরা, নীলা, গোমেদ ও বৈদুর্যমণি- রত্নকেই শ্রেষ্ঠ বলে জ্ঞান করি।

Good sign of the hand line (হস্ত রেখায় মঙ্গল চিহ্ন সমূহ)

শিবোক্ত সামুদ্রিক করচিহ্ন দৃষ্টে শুভাশুভ জ্ঞানঃ

যাহার করতলে মৎস্যের মতো রেখা দৃষ্ট হয়, সে ব্যক্তি যে-কোন কার্যেই প্রবৃত্ত হউক না কেন, তাহার মনোবাঞ্ছা সিদ্ধ হইয়া থাকে। সে প্রভূত ধনশালী এবং বহু পুত্রের জনক হইয়া থাকে।
যাহার করতলে তুলাদণ্ড, গ্রাম বা ব্রজ সদৃশ রেখা দৃষ্ট হয়, সে ব্যক্তি ব্যবসা-বানিজ্যে অবশ্যই প্রভূত উন্নতি বিধানে সমর্থ হইয়া থাকে।
স্ত্রী পুরুষ নির্বিশেষে যাহাদের করতলে পদ্ম, ধনু, খড়গ বা অষ্টকোণাদি চিহ্ন দৃষ্ট হয়, তাহারা সকলেই ধনী ও সুখী হইয়া থাকে।
যে পুরুষের করতলে শঙ্খ, চক্র, ধ্বজ, গজ ও মাষ চিহ্ন দৃষ্ট হয়-সে সর্ববিদ্যাযুক্ত ও বুদ্ধিমান হইয়া থাকে।
যাহার করতলে ত্রিশুল চিহ্ন দৃষ্ট হয় সে ব্যক্তি রাজা বা রজতুল্য হইয়া থাকে। তিনি যাগযজ্ঞ প্রভূতি ধর্মানুষ্ঠানে আগ্রহশীল, দেবদ্বিজে সতত ভক্তিপরায়ণ এবং সমাজে দানশীল ও পুণ্যাত্মা বলিয়া গণ্য হইবেন।
যাহার করতলে তোমর, শক্তি, বাণ ও তীর চিহ্ন দৃষ্ট হয়, সেই ব্যক্তি রাজ্যলাভ করিয়া থাকে। যাহার হস্তে রথ, চক্র, ধ্বজসদৃশ চিহ্ন থাকে-তিনি রাজ্যলাভ করিয়া থাকেন অথবা রাজতুল্য সম্পদ লাভ করিয়া থাকেন।
যাহার করতলে অঙ্কুশ, কুণ্ডল ও চক্রচিহ্ন দৃষ্ট হয়, তিনি রাজচক্র- বর্তী হইয়া সুখে কাল জাপন করিতে সমর্থ হন।
যাহার করতলে গিরি, কঙ্কন, যোনি বা ঘট চিহ্ন দৃষ্ট হয়- তিনি রাজমন্ত্রী হইয়া থাকেন।
যাহার করতলে সূর্য, চন্দ্র, লতা, নেত্র, ত্রিকোণ, অষ্টকোণ মন্দির, অশ্ব বা হস্তী চিহ্ন দৃষ্ট হয় তিনি অবশ্যই সুখী হইয়া থাকেন।
যাহার বৃদ্ধাঙ্গুষ্ঠের অর্ধভোগে যব চিহ্ন পরিদৃষ্ট হয় তিনি আজীবন ভোগী ও সুখী হইয়া থাকেন।
যাহার মধ্যমা বা তর্জনীর মূলে যবচিহ্ন দৃষ্ট হয় সে ব্যক্তি ধন পুত্র কলত্রযুক্ত ও সুখী হইয়া থাকে।
যাহার করতলে কনিষ্ঠার মূল হইতে অনামিকার মূলের পূর্বভাগ পর্যন্ত (আয়ুরেখা, মতান্তরে হৃদয়রেখা) রেখা দৃষ্ট হয়, সে ব্যক্তি মাত্র দশ বৎসর কাল জীবিত থাকে।
যে ব্যক্তির বৃদ্ধঙ্গুষ্ঠের উপরিভাগে শুভ লক্ষণযুক্ত ঊর্ধ্বরেখা দৃষ্ট হয়, তিনি রাজা বা সেনাপতি হইয়া থাকেন। এই প্রকার চিহ্নযুক্ত ব্যক্তি সচরাচর মধ্যমায়ূ লাভ করিয়া থাকেন। অর্থাৎ তাহাদের পরমায়ূ পঞ্চাশ হইতে ষাট বৎসরের মধ্যে হইবে।
যাহার করতলে তর্জনীর মূলভাগ পর্যন্ত ঊর্ধ্বরেখা প্রলম্বিত তিনি রাজদূত হন, কিন্তু তাহার স্বধর্মে আস্থা থাকে না। অথবা যে কোন ভাবেই হউক তাহার ধর্ম নষ্ট হইয়া থাকে।
যাহার হস্তে মধ্যমা অঙ্গুলির মূল পর্যন্ত ঊর্ধ্বরেখা দৃষ্ট হয় সেই ব্যক্তি পুত্রপৌত্রাদি সমন্বিত, ধনশঅলী ও সুখী হইয়া থাকে।
যাহার করতলে ঊর্ধ্বরেখা অনামিকার মূলদেশ পর্যন্ত প্রলম্বিত, তিনি ব্যবসা-বাণিজ্যে প্রভূত অর্থ উপার্জন করিতে সক্ষম হন, এবং পুত্র পৌত্র ও গৃহাদিযুক্ত হইয়া কখনও সুখে বা কখনও দুঃখে কালাতিপাত করেন।
যাহার করতলে কনিষ্ঠার মূলদেশ পর্যন্ত প্রলম্বিত ঊর্ধ্বরেখা দৃষ্ট হয়, তিনি চিরদিন বিদেশে বাস করেন এবং তাঁহার পরমায়ূ একশত বৎসর পর্যন্ত হইয়া থাকে।
কনিষ্ঠার মূলে রেখা দৃষ্ট হইলে, সেই ব্যক্তি দীষ্ফ, ধর্ম, পদবী, বিঘা, মান ও অপমানযুক্ত হইয়া সুখে বাস করিয়া থাকেন।
যাহার করতলে কনিষ্ঠার মূল ও তর্জনীর মূল পর্যন্ত প্রলম্বিত রেখা দৃষ্ট হয়, তিনি শতবর্ষ পরমায়ূ লাভ করেন, এবং তাহার সুখমৃত্যু হইয়া থাকে অর্থাৎ মৃত্যুকালে তাঁহাকে কষ্টভোগ করিতে হয় না।
যাহার করতলে আয়ূরেখা (মতান্তরে হৃদয়রেখা) কনিষ্ঠার মূল হইতে মধ্যমার মূল দেশ পর্যন্ত বিস্তৃত তিনি চতুর্দশ বা চতুবিংশতি বৎসর পর্যন্ত পরমায়ু লাভ করেন এবং তাহার বংশ বিনষ্ট হইয়া থাকে।
যহার পরমায়ূ রেখা কনিষ্ঠার মূল হইতে অনামিকার মূল পর্যন্ত প্রবম্বিত, তিনি ১৩ অথবা ৬৩ বৎসর পর্যন্ত পরমায়ূ লাভ করেন। জাতকের দৈহিক বলও থাকে না।
করতলস্থিত পরমায়ূ রেখা ক্ষুদ্র হইলেই জাতক অবশ্যই স্বল্পায়ূ যুক্ত হইবেন। যাহাদের পরমায়ূ রেখা ক্ষুদ্র অথচ বিস্তৃত, তাহারা কখনও সুখে, কখনও দুঃখে জীবন অতিবাহিত করিয়া অল্প বয়সেই মৃত্যুমুখে পতিত হন।
করতলে পিতৃরেখা সম্পুর্ণরুপে অঙ্কিত থাকিলে জাতক আপন পিতার ঔরসে জাত, কিন্তু পিতৃরেখা (মতান্তরে আয়ূরেখা) অর্ধরুপ অঙ্কিত থাকিলে জাতক অন্যের ঔরসজাত এরুপ বুঝিতে হইবে।
হস্তে মাতৃরেখা ও পিতৃরেখা পৃথক-পৃথকভাবে অঙ্কিত থাকে, কখনও পিতৃরেখা যুগ্মরেখারুপেও অঙ্কিত থাকে।
যাহার করতলে অত্যাধিক রেখাযুক্ত সে দুঃখী হইয়া থাকে। যাহার করতলে অল্পমাত্র রেখা দৃষ্ট হয় সে ধনহীন, যাহার মধ্যবিম্ব রেখা দৃষ্ট হয় সে মানসিক দিক হইতে সুখী হইয়া থাকেন।
বৃদ্ধাঙ্গুলি ব্যতীত করতলের অঙ্গুলি চতুষ্টয়ের পর্বরেখা গুনিয়া যদি দ্বাদশটি পৃথক রেখা দৃষ্ট হয়, সে ব্যক্তি ধনধান্যাদিযুক্ত ও সুখী হইয়া থাকে।
যাহার করতলে অঙ্গুলি চতুষ্টয়ের পর্ব রেখা গুণিলে পৃথক-পৃথক ভাবে ত্রয়োদশটি রেখা দৃষ্ট হয় সে ব্যক্তি মহাদুঃখ ও মহাকষ্ট পাইয়া থাকে।
অঙ্গুলি চতুষ্টয়ের পর্বরেখার সমষ্টি পঞ্চদশ হইলে, জাতক তস্কর হইবে, ষোল হইলে জাতক প্রবঞ্চক ও দ্যুত ক্রীড়াসক্ত হইবে, সপ্তদশ হইলে পাপাত্মা, অষ্টদশ হইলে ধর্মি, ঊনবিংশ হইলে জাতক গুনী, মানী ও লোকপূজ্য হইবে।
করতলে অঙ্গুলি চতুষ্টয়ের পর্বরেখা বিংশতি হইলে জাতক তপস্বী এবং একবিংশতি হইলে জাতক মহাত্মা হইয়া থাকে। যাহার ললাট উন্নত, বিশাল, শঙ্খকার, উর্চ্চ নীচ ও অর্ধচন্দ্রাকার তিনি ধনহীনের গৃহে জন্মিলেও ধনশালী হইবেন।
যাহার ললাটদেশ ঝিনুকের মতো বিস্তৃত, তিনি অধ্যাপক হইবেন। বহু শিরা সমন্বিত যাহার ললাটদেশ ঝিনুকের মত বিস্তৃত, তিনি অধ্যাপক হইবেন। বহু শিরা সমন্বিত যাহার ললাট, তিনি পাপাত্মা, যাহার ললাট স্বস্তিক চিহ্নযুক্ত এবং উন্নত শিরা সমন্বিত, তিনি বিদ্ব্যান ও ধনবান হইয়া থাকেন।

The new foundations of Trataka are uncoverd(ত্রাটক সাধনার নবদিগন্ত উন্মোচন)

ধ্যানের গভীরে প্রবেশ করার শ্রেষ্ঠতম উপায় “ত্রাটক”

শুভ ভ্যলেনটাইনস ডে, বিশ্বের সকল হৃদয়বান মানুষদের জন্য আমাদের ভালোবাসা ও শুভেচ্ছা রইলো। আজ আমরা এমন একটি বিষয় আলোচনা করবো, যা আমাদের নিকট সম্প্রতি ত্রাটক গুরুগণ প্রেরন করেছেন সর্বসাধারনের অবগতীর জন্য। আমরা ইতিপূর্বে ত্রাটক সাধনা সর্ম্পক্যে সাম্ম্যক অবগত হয়েছি এর দ্বারা সম্ভব্য কাজ সম্প্যর্কে জেনেছি। আজকের নতুন বিষয়টি হচ্ছে ত্রাটক সাধনায় রশ্মির ব্যবহার, সর্ম্পক্যে, আমরা জানি পৃথিবীতে প্রাকৃতিক শক্তির মধ্যে যদি সর্ববৃহৎ শক্তি আখ্যা দেওয়া হয় তবে তা সুর্যকেই দিতে হবে। দির্ঘ্যদিন যাবৎ সূর্যের অপরিমিত শক্তিকে কাজে লাগিয়ে এর দ্বারা বিভিন্ন ভাবে আমরা উপকৃত হতে পারি কি না তা ভেবে দেখা হচ্ছিল। যেমন আমরা জানি সুর্যের আলোক ও তাপ শক্তিকে বিজ্ঞানিগণ নানারুপে ধারন করে তা আমাদের প্রত্যাহিক জীবনের নানা কাজে ব্যবহার করা হচ্ছে। আবার এও জানি এই বিশ্বব্রহ্মান্ডের এমন কিছু গ্রহের প্রানী রয়েছে যাদের বেঁচে থাকার জন্য খাদ্য হিসেবে শুধু সুর্য্য কিরণ প্রয়োজন পরে। ঠিক যেমনটি আমরা বেঁচে থাকার প্রয়োজনে বিভিন্ন খাদ্য দ্রব্য পানিয় দ্রব্য খেয়ে থাকি। ন্যাশনাল জীওগ্রাফির বদৌলতে আমরা অনেকেই জানি আধুনিক ভারত বর্ষেও জৈনিক সাধু ব্যক্তি দির্ঘ্য কয়েক বছর যাবৎ শুধু মাত্র সুর্য্য কিরণ শরীরে শোষণ করে অন্য কোন প্রকার খাদ্য দ্রব্য না খেয়েই বেচে রয়েছে। আমরা এ বিষয়টি বহুবার আলোচনায় এনেছি যে এমন কিছু সম্ভব কি না যা দ্বারা ত্রাটকে সূর্য শক্তিকে ব্যবহার করা যায়। দির্ঘ্য গবেষনা ও চর্চার পর্যবেক্ষনের ফলে সম্প্রতি আমাদের গুরুগণ এই বিষয়টি জানিয়েছে যে একটি মানুষ যদি ত্রাটক সাধনার স্বাভাবিক প্র্যাকটিস বাদ দিয়ে শুধু ত্রাটকের সূর্য্য সাধন করে তবেই সে তার অতিত ভবিষ্যৎ শত্রু মিত্র জীবনের সকল প্রকার ভালো মন্দ সহসাই নিজেই নিয়ন্ত্রত করতে সক্ষম হবে। এর সময় ও পরিশ্রমও তুলনা মূলক কম তবে কিছুটা কষ্ট সাধ্য অবশ্যই। আমাদের গুরুগণের অনুমতি ও পরামর্শ্য ছিলো এর কিছু নিয়মাবলী আপনাদের সামনে উন্মচন করা হোক এতে আমাদের বিগত স্টুডেন্ট ও যারা আমাদের নিকট হতে দুরে রয়েছে তারাও হয়তো ত্রাটকের এই সুর্য্য সাধনা প্র্যাকটিস করে উপকৃত হতে পারবে। কিন্তু বাংলাদেশের মত একটি নকল প্রবন দেশে এই কাজটি করা হতে আমরা বাধ্য হয়েই ক্ষান্ত হলাম কারন আমরা জানি যেমন ত্রাটক সাধনার স্রষ্টা আমাদের প্রতিষ্ঠান হয়েও আজ হাজার হাজার ভুয়ো ফেইক তান্ত্রিক সাইটে লেখা দেখা যায় ত্রাটক সাধনার প্রশিক্ষণ দিচ্ছে। সেখানে আমরা এই বিষয়টিও পোষ্ট করার সঙ্গে সঙ্গেই তা হাজার হাজার কপি হয়ে যাবে।। তবে যে সকল শুভানুধ্যায়ী ভাই বোনেরা ইতি পূর্বে ত্রাটক সাধনা গ্রহন করেছেন এবং যারা করতে ইচ্ছুক তেনাদের জন্য বলা হচ্ছে আপনারা অবশ্যই ইমেইলে আমাদের সাথে যোগাযোগ করবেন তাহলেই আমরা ত্রাটক সাধনায় সংযুক্ত হওয়া এই নতুন সুর্য্য সাধনার বিধি নিয়ম আপনাদের মেইল করে প্রেরন করে দিবো। সকলেই ভালো থাকবেন।

ত্রাটক সাধনার সকল আলোচনা গুলো পড়ুন…

Surah Fatihah Fajilat (সূরা ফাতিহার ফযিলত)

সূরা ফাতিহার ফযিলতঃ

সূরা ফতিহার খুবই ফযিলত ও মর্যাদা রয়েছে। হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) বলেছেন যে, “যে ব্যক্তি সূরা ফাতিহাসহ সূরা ইখলাস, ফালাক ও নাস নিদ্রা যাবার পূর্বে পাঠ করবে, সেই ব্যক্তির মৃত্যু ছাড়া সাধারণ বিপদাপদ হতে মুক্ত থাকবে।”
তিনি অন্যত্র আরও বলেছে যে, “উম্মুল কুরআন (সূরা ফাতিহা) সব ধরনের ব্যথা ও রোগের শেফা স্বরুপ।”
আর আলেমগন বলিয়াছেন যে, যদি কেউ অসুস্থ্য হয় তাহলে সেই অসুস্থ্য ব্যক্তির গায়ে হাত রেখে সূরা ফাতিহা ১ বার এবং নিচের দোয়াটি ৭ বার পাঠ করে, ইনশাআল্লাহ আল্লাহর মেহেরবানীতে খুব শীঘ্রই সেই ব্যক্তি সুস্থ্য হবে দোয়া হল এইঃ (দোয়া)
আর যেই ব্যক্তি নীচে উল্লেখিত পবিত্র বৃত্তাকারের নকশাটি লিখিয়া ‘উদ ও অন্যান্য সুগন্ধির ধোয়া দিয়ে নিজের কাছে পাক-পবিত্র অবস্থায় রাকিবে, তার সকল মুশকিল দুর হইবে এবং সকল মানুষের অন্তরে তার প্রতি সমীহ বোধ সৃষ্টি যখনই কোন সমস্যা দেখা দিবে তখন গোসল করবে। এরপর পাক-পবিত্র কাপড় পরিধান করে সুগন্ধি মাখবে। জায়নামাযে বসিয়া আয়াতুল কুরসি, আমানার রসূল এবং তিনবার করে চার কুল সূরা পড়ে নিজের শরীরে ফুঁক দিবে। এরপর নীচে উল্লেখিত নিয়মে সূরা ফাতিহা পাঠ করবে। (নিয়মটি এখানে)
এই সাতদিনের মধ্যেই মনের উদ্দেশ্য সফলতা লাভ করবে।
সূরা ফাতিহার দ্বারা কোন ব্যক্তিকে বশীভূত করিবার পদ্ধতি হলঃ নির্দিষ্ট ব্যক্তির নামের অক্ষর সমূহের সঙ্গে অগ্নিজ অক্ষরগুলিকে মিশ্রিত করবে। অগ্নিজ অক্ষরগুলো হল (অক্ষরগুলি) মিশ্রিত করার পদ্ধতি হল একটি অগ্নিজ অক্ষর নিবে, আর নামের একটি অক্ষর নিবে। এভাবে প্রত্যেকটি হতে একটি করে অক্ষর নিতে থাকবে। কিন্তু শর্ত থাকে যে, প্রথম ও শেষে অগ্নিজ অক্ষর হতে হবে। এক রকমের অক্ষরগুলো ২১ টি কাগজের টুকরায় লিখে প্রতিটি টুকরায় সাথে ১ টি করে পাথরের টুকরা বেঁধে অল্প কিছু আসপন্দে ভিজিয়ে রেখে টুকরাগুলোকে আগুনে ফেলে দিবে। এরপর সূরা ফাতিহা পাঠ করতে থাকবে। ধোঁয়া যতক্ষণ পর্যন্ত বন্ধ না হবে ঠিক ততক্ষণ পর্যন্ত সূরা ফাতিহা পাঠ করতে থাকবে। এরপর নীচে উল্লেখিত শব্দগুলো পড়বে।
(শব্দ গুলো)
হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) বলেছেন, যে ব্যক্তি নিদ্রা যাবার সময় সূরা ফাতিহা, আয়াতুল কুরসী (আয়াত) পর্যন্ত পড়বে, সূরা ইখলাস, মুয়াবেযাতইনী (ফালাক, নাস) পাঠ করে, আল্লাহ তা’আলা তার জন্য দু’জন ফেরেশতাকে এই কথা বলে নিযুক্ত করান যে, আমার এই বান্দাকে সারারাত হেফাযত করবে। যদি সে রাতে সেই লোক মারা যায় তাহলে তাকে ক্ষমা করে দেয়া হয়।
কোন ব্যক্তি তার কোন কিছুর দরকারে বা কোন রোগ মুক্তির জন্য সূরা ফাতিহার নকশাটি লিখে নিজের নিকটে রাখলে তার উদ্দেশ্য হাসিল হবে
(সূরা ফাতিহার নকশা)

Prophet Muhammad (peace be upon him) in the dream (হযরত মোহাম্মদ (সাঃ) কে স্বপ্নে দেখার আমল)

নূর নবী হযরত মোহাম্মদে মোস্তফা আহম্মদে মোস্তফা রাসূল (সাঃ) এর জিয়ারত লাভের আমলঃ

আমাদের সাথে রয়েছেন বিখ্যাত আধ্যাত্মিক ব্যক্তিত্ব্য আলহাজ্জ মুফতি মাওলানা মোহাম্মদ সামস জিদান লাহোর। আপনারা যেনারা আধ্যাত্মিক উন্নতী কল্পে ক্বলবের বিচ্ছিরনে স্বিয় সত্বাকে স্রষ্টার সাথে একিভুত করতে চাইছেন, রুহানী জগতে পদচারনা করতে ইচ্ছে পোষন করছেন, তেনাদের সাহাযার্থে আজ এখানে উচ্চমার্গিয় বিষয় নিয়ে আলোচনা করা হচ্ছে। অবশ্যই আপনি আমাদের নিকট হতে কিংবা আপনার নিজ এলাকায় কোন আধ্যাত্মিক গরু, মুফতি, মুফাচ্ছের, ইলমে দিনে জিনি পন্ডিত দাগহীন আলেম তেনার নিকট এজাজত পরিপূর্ণ বিধান জেনেই এই সাধনায় অগ্রসর হবেন।
আজকের সাধনা কোন অর্থ প্রাপ্তি, নারী সঙ্গ, সন্মান প্রাপ্তির জন্য নয়, আজকের সাধনা কোন লোভের বসে কৃত সাধনা নয়, স্রষ্টার সাথে সাক্ষাতের জন্য সাধনা বা স্রষ্টার সাথে সাক্ষাতের জন্য তার নিকট প্রার্থনা করা।
আধ্যাত্মিকতার জন্য এটি প্রথম ধাপ নয় তবে আপনি যদি আপনার আধ্যাত্মিকতার সুচনা লগ্নেই এই তদবীর দ্বারা ফল লাভ করতে পারেন তবে অবশ্যই বিষয়টি হবে অচিন্তনীয় সুফল দায়ক।
এরজন্য অবশ্যই আপনাকে শরিয়তের যে মুল বিষয়গুলো রয়েছে তার পরিপূর্ণ পালন করতে হবে। নামাজ রোজা হজ্জ জাকাত ইত্যাদি সেই সাথে দরিদ্রদের জন্য উদার মনা হওয়াও জরুরী।
প্রাচীন মিশরীয় আধ্যাত্মিক মারুফতি কিতাবগুলোতে এই তদবীরটি বেশ পরিচিত। আমরা হযরত মোহাম্মদ (সাঃ) কে স্বপ্নে জেয়ারত লাভের জন্য বিভিন্ন ধরনের আমল করে থাকি, বিভিন্ন বই কিতাবে এ বিষয় বিস্তর লেখা দেখতে পাওয়া যায়, বিভিন্ন মাওলানা, মুফতি সাহেবেরা তেনাদের নিজেস্ব নিয়ম পদ্ধতী প্রদান করে থাকে, এবং সেই পদ্ধতী কাহারো কাহারো সহজ হলেও অনেকের পদ্ধতী বেশ জটিল, ব্যক্তিগত ভাবে যতটুকু যেনেছি সে সকল তদবীর আমল করে অনেকেই ফল হয়তো পায় কিন্তু অধিকাংশ ব্যক্তিকেই নিরাশ হতে দেখা গেছে আজ আমরা যে আমলটি দিলাম এটিতে আপনি অবশ্যই ফল পাবেন এবং এর চাইতে সহজতর নিয়ম জগৎ সংসারে অন্য কোন শাস্ত্রে খুজে পাবেন না বলেই আমাদের বিশ্বাষ।
দোওয়াঃ আল হামদু লিল্লাহিল্লাযী ফিস সামায়ি আরশিহী, আল হামদু লিল্লাহিল্লাযী ফিল আরদি কুদরাতিহী। আল হামদু লিল্লাহিল্লাযী ফিল যান্নাতি  রুইয়াতিহী, আল হামদু লিল্লাহিল্লাযী ফিল কুবুরী কাযাইহি, আল হামদু লিল্লাহিল্লাযী ফিল বাররি সুলতানিহী, আল হামদু লিল্লাহিল্লাযী লা মানযা আ ওয়ালা মানজা আ মিনাল্লাহী ইল্লা ইলাইহী। লা হাওলা  ওয়ালা কুয়াতা ইল্লা বিল্লাহিল আলিয়্যিল আযীম, ওয়া সাল্লাল্লাহু আলা খায়রি খালক্বিহী মুহাম্মাদিঁও ওয়া আলিহী ওয়া আসহা বিহী আজমাঈন। বি রাহমাতিকা ইয়া আরহামার রাহিমীন, আল্লাহুম্মা আজিরনী ফী মুসিবাতী ওয়াখ লুফনী খাইরাম মিনহা।
নিয়মঃ যে কোন চন্দ্রমাসের প্রথম দিকেই শুরু করবেন যদি বৃহষ্পতিবার হতে শুরু করতে পারেন তবেই অধিকতর ভালো হয়। আপনাকে অবশ্যই স্বাভাবিক ধর্মিয় রিতিনিতি যথাযথ ভাবেই চালিয়ে যেতে হবে। এবার এশার নামাজ ও বেতর নামাজ আদায় করার পর, নিজের ঘরটিকে সুগন্ধিময় করে পবিত্র বিছানায় পবিত্র পোষাক পড়ে শুয়ে পরবেন, এবং শুয়ে উপরক্ত দোওয়াটি ১৫ বার তেলাওয়াত করতে হবে। তবে তার পূর্বে দরুদে ইব্রাহিম ১০ বার পড়ে নিতে হবে এবার এই দোওয়া জপ শেষ করে ঘুমানোর পূর্ব পর্যন্ত দরুদ পাঠ সেই সাথে নুর নবী হযরত মোহাম্মদে মোস্তফ আহম্মদে মোস্তফা ( সাঃ) এর প্রতি অকুণ্ঠ ভালোবাসা দরদ ও তার সাথে সাক্ষাতের মনো বাসনা নিয়ে ঘুমাতে হবে। ইনশা আল্লাহ প্রথম দিনেই কিংবা পরপর তিন থেকে সাতদিন নিয়ম মত করলেই আপনি দোজাহানের সর্দার আপনার আমার নাজাতের কান্ডারীর জেয়ারত নসিব হবেই। আজ এ পর্যন্তই
আধ্যাত্মিক সেবার সকল আলোচনা গুলো পড়ুন…