Conquest Tantra ( বশীকরণ তন্ত্র)

Today, we have come up with a very powerful, very effective Conquest system, which is very convenient and easy for people who live in acute village sites. Anyone who uses this method can find a lost lover or loved one.

EQUIPMENT:

  1. A frog (male or female)
  2. A little bit of vermilion
  3. Punch juice

Day: Saturday or Tuesday
Time: Before sunrise
Direction: The face of the wanted person’s house.
Mantra: Not acceptable

Behind: Before work, with honor, take the permission of the guru, or else everything can be fruitless.

Rules: At first rainy season come home on a rainy day and bring a frog to find nearby. It is said that the common frog, is found in the pond that a little bigger frog is available,

The main problem is to recognize the male/female frog, That is, if you are a man and want to convey a girl, you must definitely take a female frog, so if you are a girl and want to convey a male, then you must provide a male Frog. Below there is a simple rule of crossing the border, as well as the simplest method of providing five-folds. The rules of the other work are the same.

For example, you will get a frog on Saturday or Tuesday, then it will be kept alive in a safe place, for the next job. Then you will have to provide your body pancake, like 1) tears, 2) nose water. 3) mouth saliva or sputum, 4) In case of uncontested women, louse or urine can be used, 5) Blood of your body. All these things have to be taken together in a small quantity or glass containers.Just like all 1 is enough to blast. So sit in a lonely house during the evening, Sit in front of the frog ‍and think of your wishing person and tell him three times before the frog face “I am so crazy for such and so (the name of my own name and my father’s name), the so-called (the name of the girl and her mother’s name) I love him, I want to get him”.
Now the mouth of the frog should be carefully screwed and poured into the fifth part in frog mouth and put a little vermilion on his head. And take him away and leave him in the house of your beloved, Of course, all work done that night, Wait a few days Your wishes will certainly be of interest to you & Contact you. There will be no exceptions.

How to recognize male and female frogs: Ways to feed male frogs: »There are two black-colored pockets on the lower jaw. »In the front of the jaw, the middle of the middle of the hand is yellow in color. »The curtains are usually small and the fingers are thick. »Wrist wrists are quite thick. »Born in bright breeding season. »When you push the back of the foot forward, you have to keep sound from the mouth. »In size is bigger and higher than weight. Wife to know the frog: »No sound pouch. »The color of the space between the two hands in the front of the jaw is bleak in all seasons. »The curtain looks bigger and the fingers are narrow. »Foot wrist is quite narrow. »Breast swelling in the breeding season. »When pressing on the back of the front leg can not make any noise, rather the stomach swells and leaves the ointment in some cases. »Small in size and weight is less.

Government jobs waiting for you

Are you upset with any official, non-government employment, giving an interview day after day? You have the qualifications, but the amount of bribe trading that is going on in every job is not unfavorable for you? But we are for you, In the face of thousands of unemployed youths of the country, I laughed at the faces of his family, helped to shape their new life, Then why are you left?
Your destiny is not against you, You are deceiving your luck, And you are responsible for that.

Contact us today, Your job will be there now. We are giving 100 percent guarantees to this issue.
In the last 11 years, no one has ever returned from us, You will not go too, Get a new start in your luck line from this moment.

Yes, at the moment, to inform your family, relatives, neighbors that you are no longer unemployed, your reproach needs to be told that you are not weak. You have never been neglected, and you will not be there.

Cure diseases Stone, Mantra & Talisman (রোগ আরোগ্যের রত্ন-যন্ত্র ও কবচ)

রোগ আরোগ্যের রত্ন-যন্ত্র ও কবচঃ

রোগের নাম                                      রত্ন                         যন্ত্র                       কবচ

  1. অর্শ                                 নীলা/গোমেদ              অপরাজিতা              দক্ষিণাকালী
  2. অগ্নিদগ্ধ                                 প্রবাল                         মং                    বগলা মুখী
  3. অস্থির রোগ                         চনী/নীলা                       সং                       ইন্দ্র
  4. অস্থির টিউমার                      গোমেদ                        ছ্রীং                      বরাহ
  5. অর্ব্বুদ                            নীলা/শ্বেতপ্রবাল                  শ্রীং                       সূর্য্য
  6. কণ্ঠে ক্যান্সার                         পান্না                         ক্রীং                   নীলতারা
  7. অণ্ডকোষের/পীড়া                     মুক্তা                         হ্রীং                    কনকধারা
  8. অনিদ্রা                              চুনী/গোমেদ                   কৃষ্ণা                  ত্রিপুরাসুন্দরী
  9. অন্ত্রপীড়া                           পীতপোখরাজ                   হ্রীং                      তারা
  10. অন্ত্রে ক্যান্সার                   প্রবাল/পোখরাজ                নীলতারা                   হ্রীং
  11. পাকস্থলীতে ব্যাথা               পীতপোখরাজ                 অন্নপূর্ণা                 করুণাময়ী
  12. পাকস্থলীতে ক্যান্সার           পোখরাজ/চুনী                  শ্যামা                      শ্যামা
  13. একশিরা                              নীলা                           শৌং                   শ্মশানকালী
  14. টন্‌সিল                             মুক্তা/পান্না                       চন্দ্র                       কৃষ্ণা
  15. আকস্মিক দুর্ঘটনা                   প্রবাল                       গোবিন্দ                    কৃষ্ণাষ্টক
  16. আমাশয়                      পীত পোখরাজ প্রবাল             ছিন্নমস্তা                    তারা
  17. আমরাত                            ক্যাটস্ আই                      হ্লীং                     কন্যাণেশ্বরী
  18. বিসর্প                               ক্যাটস্ আই/নীলা              কালী                       কালী
  19. মূত্রাশয়ে                             পাথর চুনী                      সূর্য্য                         ইন্দ্র
  20. মূত্রাশয়ে যন্ত্রনা                        প্রবাল                         ইন্দ্র                         অগ্নি
  21. মূত্রাশয়ে ক্যান্সার                    নীলা/গোমেদ              কালভৈরবী                  কালী
  22. মলদ্বারে ক্যান্সার                     মুক্তা/নীলা                  ভৈরবী                     বিদ্যা
  23. চর্ম্মপীড়া                               ক্যাটস্ আই                ধূমাবতী                   মহাকালী
  24. উদরী                                  মুক্তা/পোখরাজ              শ্রৌং                       ভগবতী
  25. উদরাময়                                 গোমেদ                     স্ত্রীং                        ছিন্নমস্তা
  26. উপদংশ                                 নীল/চুনী                   বরুণ                       অশোকা
  27. নাসিকার রোগ                           হীরা                      ইন্দ্র                           অগ্নি
  28. বুকে ব্যথা                                  পান্না                     শ্রী                            কালী
  29. শ্বাসনালীতে ক্যান্সার               শ্বেত পোখরাজ              সং                         ভুবনেশ্বরী
  30. হাঁপানি                                    মুক্তা/পান্না             অন্নদা                         সিদ্বেশ্বরী
  31. ফুস্‌ফুসে ক্যান্সার                       পান্না/গোমেদ         নলেশ্বরী                          যমুনা
  32. জিহ্বায় ক্যান্সার                         পান্না/প্রবাল           সর্ব্বেশ্বরী                      কর্পূরগন্ধা
  33. লিভার ক্যান্সার                        পোখরাজ/নীলা           হ্রীং                            ধনদা
  34. হর্টে ক্যান্সার                               পান্না               নীল সরস্বতী                      সুন্দরী
  35. পিত্তথলীতে ক্যান্সার                       চুনী                    দুর্গা                              দুর্গা
  36. গণোরিয়া                            প্রবাল/চুনী/হীরা          ধূমাবতী                           ইন্দ্র
  37. জরায়ুতে ক্যান্সার                      হীরা/পান্না             কামাখ্যা                            ত্রীং
  38. লিঙ্গে ক্ষত                                হীরা/মুক্তা                 ত্রীং                          ভুবনেশ্বরী
  39. ধ্বজভঙ্গ                                   হীরা/চুনী              কামাখ্যা                          হ্রীং
  40. কুষ্ঠ                                        হীরা/মুক্তা             ছিন্নমস্তা                           হ্লীং
  41. নেত্র রোগ                                    চুনী                    সূর্য্য                            ইন্দ্র
  42. দৃষ্টিহীনতা                                মুক্তা/নীলা               শ্যামা                           শ্রীং
  43. জন্ডিস্                                    পীত পোখরাজ         নীলসরস্বতী                    স্ত্রীং
  44. বাত                                         চুনী/নীলা            বিশল্যকরণী                  শ্যামা
  45. মৃগীরোগ                                 নীলা/গোমেদ           নীলতারা                    সরস্বতী
  46. যক্ষ্মা                                   শ্বেত প্রবাল/মুক্তা       নীল সরস্বতী                  অট্টহাসা

বিঃদ্রঃ- এই সব ব্যাধি মুক্তির রত্ন, যন্ত্র ও কবচ আমি পেয়েছি কামাখ্যাতে বাস করবার কালে এক ভৈরবীর কাছ থেকে। তিনি দীর্ঘদিন ধরে আমাকে পরীক্ষা করে এই তথ্যসমূহ উদার হৃদয়ে দান করেন। ইনি ছিলেন ললামভূতা অপাপবিদ্ধা সাধিকা।এককালে কোলকাতার একটি নামকরা বিদ্যালয়ে লেখাপড়া শেখেন। জ্যোতিষ ও তন্ত্রশাস্ত্রে ছোটবেলা থেকেই মন। নিজের অমতে পিতা অর্থলোভে এক অপগণ্ডের সঙ্গে বিয়ে দেন। বিয়ের ছয় মাসের মধ্যে স্বামী পলাতক হন। এই নারী দিব্য জীবন লাব করবার জন্য একাকিনী বেরিয়ে পড়েন ভারততীর্থ ঘুরতে। চট্টগ্রামে চন্দ্র পর্বত থেকে শুরু করে গোমুখ পর্যন্ত বিচরণ করেন। তারাপীঠে ১২ বছর বাস করে আসেন কামাখ্যাতে। সেখানে নির্জন এক খুপরীতে থাকতেন।

Business, trade and employment improvements (ব্যবসায়, বাণিজ্যে ও চাকুরীতে উন্নতির জন্য রত্ন বা যন্ত্র)

ব্যবসায়, বাণিজ্যে ও চাকুরীতে উন্নতির জন্য রত্ন বা যন্ত্রঃ

  1. মেষ লগ্নের জন্য নীলা বা ভবনেশ্বরী যন্ত্রম্।
  2. কৃষ লগ্নের জন্য লাল প্রবাল বা অন্নপূর্ণা যন্ত্রম্।
  3. মিথুন লগ্নের জন্য পীত পোখরাজ বা ত্রিপুটা যন্ত্রম্।
  4. সিংহ লগ্নের জন্য গোমেদ বা মহিষমর্দিনী যন্ত্রম্।
  5. কর্কট লগ্নের জন্য নীলা বা দুর্গা যন্ত্রম্।
  6. কন্যা লগ্নের জন্য ক্যাটস্ আই বা লক্ষ্মী যন্ত্রম্।
  7. তুলা লগ্নের জন্য স্ফটিক বা হরিদ্রাগণেশ যন্ত্রম্।
  8. বৃশ্চিক লগ্নের জন্য হীরা বা শ্রীসূর্য যন্ত্রম্।
  9. ধনু লগ্নের জন্য পান্না বা শ্রীরাম যন্ত্রম্।
  10. মরক লগ্নের জন্য মুক্তা বা শ্রীকৃষ্ণ যন্ত্রম্।
  11. কুম্ভ লগ্নের জন্য চুনী বা নৃসিংহ যন্ত্রম্।
  12. মীন লগ্নের জন্য শ্বেত প্রবাল বা শিব যন্ত্রম্।

Remove the Enemy & Disorder (শত্রু ও মারাত্মক ব্যাধি দূর করা)

শত্রু ও মারাত্মক ব্যাধি দূর করবার জন্য রত্ন ও যন্ত্রঃ

  1. মেষ লগ্নের জন্য পান্না ৪/৫ রতি বা বা ভুবনেশ্বরী যন্ত্র।
  2. বৃক্ষ লগ্নের জন্য হীরা ৩/৪ রতি বা ত্রিপুরেশ্বরী যন্ত্র।
  3. মিথুন লগ্নের জন্য পীত পোখরাজ ৫/৬ রতি বা তারা য্ন্ত্র।
  4. সিংহ লগ্নের জন্য নীলা ৩/৪ রতি বা মহাকালী যন্ত্র।
  5. কর্কট লগ্নের জন্য পীত পোখরাজ ৫/৬ রতি বা তারা যন্ত্র।
  6. কন্যা লগ্নের জন্য গোমেদ ৬/৭ রতি বা ছিন্নমস্তা যন্ত্র।
  7. তুলা লগ্নের জন্য ক্যাটস্ আই ৫/৬ রতি বা ধূপবতী যন্ত্র।
  8. বৃশ্চিক লগ্নের জন্য শ্বেত প্রবাল ৭/৮ রতি বা জগদ্ধাত্রী যন্ত্র।
  9. ধনু লগ্নের জন্য সাদা পোখরাজ ৫/৬ রতি বা দক্ষিণা কালী যন্ত্র।
  10. মরক লগ্নের জন্য সাদা পোখরাজ ৫/৬ রতি বা দক্ষিনা কালী যন্ত্র।
  11. কুম্ভ লগ্নের জন্য মুক্তা ৪/৫ রতি বা ত্রিভুবনেশ্বরী যন্ত্র।
  12. মীন লগ্নের জন্য চুনী ৩/৪ রতি বা শ্যামা যন্ত্র।

Remove the money problem (অর্থকষ্ট দূর করবার রত্ন ও যন্ত্র)

আপনার অর্থকষ্ট দূর করবার রত্ন ও যন্ত্রঃ

  1. আপনার মেষলগ্ন হলে আপনি হীরা ৩/৪ রতি প্লাটিনামে ধারণ করুন। অথাব শ্রীং যন্ত্র ধারন।
  2. আপনার বৃষলগ্ন হলে আপনি পান্না ৪/৫ রতি সোনায় ধারণ করুন। অথবা ভুবনেম্বরী যন্ত্র ধারণ করুন।
  3. আপনার মিথুন রগ্ন হলে আপনি মুক্তা ৫/৬ রতি রুপায় ধারণ করুন। অথবা ক্লীং যন্ত্র ধারণ করুন।
  4. আপনার কর্কট লগ্ন হলে আপনি চুনী ৩/৪ রতি প্লাটিনামে ধারণ করুন। অথবা সূর্য যন্ত্র ধারণ করুন।
  5. আপনার সিংহ লগ্ন হলে আপনি শ্বেত প্রবাল ৭/৮ রতি রুপায় ধারণ করুন। অথবা হুলীং যন্ত্র ধারণ করুন।
  6. আপনার কন্যা লগ্ন হলে আপনি স্ফটিক রত্ন ৪/৫ রতি সোনায় ধারণ করুন। অথবা হ্রীং যন্ত্র ধারন করুন।
  7. আপনার তুলা লগ্ন হলে আপনি অরুন বর্ণ প্রবাল রত্ন ১১/১২ রতি ধারণ করুন। অথবা “হ্লীং ক্রীং” যন্ত্র ধারণ করুন।
  8. আপনার বৃশ্চিক লগ্ন হলে আপনি গোমেদ রত্ন ৬/৭ রতি রুপায় ধারণ করুন। অথবা ক্রীং যন্ত্র ধারণ করুন।
  9. আপনার ধনু লগ্ন হলে আপনি নীলা ৪/ সাড়ে ৪ রতি সোনায় ধারণ করুন। অথবা ক্রীং যন্ত্র ধারণ করুন।
  10. আপনার মকর লগ্ন হলে আপনি ক্যাটস্ আই ৫/৬ রতি সোনায় ধারণ করুন। অথবা ক্রৌং যন্ত্র ধারন করুন।
  11. আপনার কুম্ভ লগ্ন হলে আপনি পীতি পোখরাজ ৫/৬ রতি সোনায় ধারণ করুন। অথবা নীলতারা যন্ত্র ধারণ করুন।

আপনার মীন লগ্ন হলে আপনি নীলা ৩/৪ রতি সোনায় ধারণ করুন। অথবা ষোড়শী যন্ত্র ধারণ করুন।

Japfall Evaluation (জপফল নির্ণয়)

জপফল নির্ণয়ঃ

অঙ্গুলি দিয়ে গণনা করে জপ্ করলে একগুণ ফল লাভ হয়। অঙ্গুলি পর্বের দ্বারা জপ্ করলে আটগুণ ফল লাভ, জীব পুত্রিকার দ্বারা জপ করলে দশগুণ ফল, শঙ্খ মালায় শতগুণ, প্রবাল মালায় সহস্রগুণ, মণি ও রত্ন মালায় শতগুণ, প্রবাল মালায় সহস্রগুণ, মণি ও রত্ন মালায় অযুতগুণ, স্ফটিক মালায় অযুতগুণ, মুক্তা মালায় লক্ষগুণ, পদ্ম মালায় দশলক্ষগুণ, স্বর্ণ মালায় কোটিগুণ, কুশমূল নির্মিত মালায় বহু লক্ষগুণ এবং রুদাক্ষ মালার জপ করলে অশেষ গুণ ফল লাভ হয়।
কালিকাপুরাণে বলা হয়েছে-“বিভিন্ন মালা থাকার জন্য তার বিভিন্ন ফল লাভ হয়। একটি মালার সঙ্গে অন্য মালা মেশাবে না।এতে ফল লাভের আশা করা যায় না। উল্টে গ্রহদোষ আরো বৃদ্ধি পায়।
মুণ্ডমালা তন্ত্রে বলা হয়েছে, “ধূমাবতীর” মন্ত্র জপ্ করবার সময়ে ধুস্তরের কাষ্ঠনির্মিত মালা ব্যবহার করবে। নরাঙ্গুলির অস্থির দ্বারা মালা তৈরী করে জপ করলে সর্বকামনা পূর্ণ হবে।এবং কামনা বিশেষ ভ্ন্নি ভিন্ন দ্রব্য দ্বারা মালা নির্মাণ করতে হবে।
যেমনঃ-
শত্রুনাশের জন্য পদ্মবীজের মালা।
পাপনাশের জন্য কুশমূল মালা।
পুত্র কামনায় জীবপুত্রিকা মালা।
অভীষ্ট লাভ কামনার মণি রৌপ্য নির্মিত মালা।
বিপুল ধন কামনায় প্রবাল মালা।
বারাহী তন্ত্রে পাওয়া যায়- “সুবর্ণ, মণি, স্ফটিক, শঙ্খ ও প্রবাল দিয়ে মালা নির্মাণ করতে হয়। সেখানে সর্বদা জীবপুত্রিকার মালা ত্যাগ করবেন। পদ্মবীজ, রুদ্রাক্ষা ভদ্রাক্ষ দ্বারা নির্মিত মালা অতি পলপ্রদ।
রবিদোষ খণ্ডনের জন্য মণির মালা শ্রেষ্ঠ।
চন্দ্রের দোষ খণ্ডনের জন্য মুক্তার মালা শ্রেষ্ঠ।
মঙ্গলের দোষ খণ্ডনের জন্য প্রবালের মালা শ্রেষ্ঠ।
বুধের দোষ খণ্ডনের জন্য রৌপ্য মালা শ্রেষ্ঠ। এবং রুদ্রাক্ষের মালাও অতি ফলপ্রদ।
বৃহস্পতির দোষ খণ্ডনের জন্য পদ্মবীজের মালা অতি শুভ।
শুক্রের দোষ খণ্ডনের জন্য স্ফটিকের মালা শ্রেষ্ঠ।
শনির দোষ খণ্ডনের জন্য কুশ মূলের মালা শ্রেষ্ঠ।
রাহুর ও কেতুর দোষ খণ্ডনের জন্য শ্বেত চন্দনের মালা শ্রেষ্ঠ।
বিঃ দ্রঃ- মালা নির্মাণ করে তাকে শোধন করতে হবে। শোধনহীন মালা কোন ফলই দান করে না।
রুদ্রযামল তন্ত্রে বলা হয়েছে-
“অপ্রিতিষ্ঠিতমা লাভির্মন্ত্রং জপতি যো নরঃ।
সর্ব্বং তন্নিষ্ফলং বিদ্যাৎ ক্রুদ্ধা ভবতি দেবতা।।”
সনৎকুমার তন্ত্রে লেখা আছে-“কার্পাস সুতোর দ্বারা গাঁথা মালায় জপ করলে চতুর্বর্গ সিদ্ধি হয়। ঐ সুতো কোন ব্রাক্ষণ কুমারীর দ্বারা প্রস্তুত করতে হবে।”
নীলতারা তন্ত্রে আছে- “যে কুমারীর প্রথম ঋতু হয়েছে, সে যদি মালা গেঁথে দেয় তবে সে মালা সবচেয়ে বেশী ফল দান করে।”
সাদা, লাল বা কালো বর্ণ পট্টসূত্র দ্বারা মালা গেঁথে জপ করতে হবে। এবং-
শান্তি কার্যের জন্য শ্বেতবর্ণ সুতো দরকার।
বশ্যাদি কার্যের জন্য লালবর্ণ সুতো দরকার।
মারণ কার্যের জন্য কালো সুতো দরকার।
আবার, মুক্তি, ঐশ্বর্য ও জয়াদি কাজের জন্য শ্বেতবর্ণ সুতোই জত্তম।
এবং সুতো ত্রিগুণ করে পুনরায় তাকে ত্রিগুণ করে সুন্দরভাবে মালা গ্রন্থন করতে হবে। এবং “অং ওং অং” মন্ত্রে মালা গ্রন্থন করবে। আর সুতোয় যখন বস্তু দেবে- তারপর একটা করে ব্রক্ষগ্রন্থি দিতে হবে।
মুণ্ডমালা তন্ত্রে বলা হয়েছে- “নয়টি অশ্বথ পাতা পদ্মকারে ছড়িয়ে তার উপর মাতৃকামন্ত্র ও মূলমন্ত্র উচ্চারণ করে মালা রাখবে। তারপর “ওঁ সদ্যোজাতং প্রপদ্যামি সদ্যোজাতায় বৈ নমঃ” মন্ত্রে পঞ্চগব্য দ্বারা মালা ধৌত করবে। তারপর
“ওঁ বামদেবায় নমঃ”
ওঁ জ্যেষ্ঠায় নমঃ।
ওঁ রুদ্রায় নমঃ।
ওঁ কালায় নমঃ।
ওঁ কলবিকরণায় নমঃ। ওঁ বলবিকরণায় নমঃ। ওঁ বলপ্রমথয়ে নমঃ। ওঁ সর্ব্বভূতদমনয়ে নমঃ। ওঁ নো মনোন্মথনায় নমঃ।
মন্ত্রে চন্দন ও অগুরু ও কর্পূর দ্বারা মালা লেপন করবে।
তারপরঃ-
“ওঁ অঘোরেভ্যোহথ ঘোরেভ্যো ঘোরঘোরতরেভ্যঃ
সর্ব্বতঃ সর্ব্বসর্ব্বেভ্যো নমস্তেহস্তু রুদ্রারুপেভ্যঃ।।
মন্ত্রে মালা ধূপিত করবে। আবার,
“ওঁ তৎপুরুষায় বিদ্মহে মহাদেবায় ধীমহি তন্নো রুদ্রঃ
প্রচোদয়াৎ।” মন্ত্রে মালা চন্দন সিক্ত করবে।
তারপর-“ওঁ ঈশানঃ সর্ব্ববিদ্যানামীশ্বরঃ সর্ব্বভূতানাং ব্রক্ষাধিপতিব্রাক্ষণোহধিপতিঃ ব্রক্ষা শিবো মেহস্তু সদাশিবম্।।” মন্ত্রে মালায় প্রতি  বীজে শতবার জপ করবে।
বারাহী তন্ত্রে আছে- মালার উপরে মায়াবীজ লিখে “হ্রীং মালে মালে মহামালে সর্ব্বতত্ত্বস্বরুপিণি। চতুর্ব্বর্গস্তয়ি ন্যস্তস্তস্মান্নে সিদ্বিদা ভব।” মন্ত্র পাঠ করে রক্ত কুসুম দ্বারা পূজা করবেন।

Use the Stone & Necklace to get back to luck (রত্ন ও মালাদির দ্বারা ভাগ্য ফেরান)

রত্ন মালাদির দ্বারা ভাগ্য ফেরানঃ

সিকিমের ও হেমিসের তান্ত্রিক বৌদ্ধদের গুস্ফায় দেখেছি নানারকম পাথরের মালা জপ্ করতে। শুধু তারা কেন, হিন্দু তান্ত্রিক, বৈষ্ণব, শৈব, মুসলমান ফকীর এবং রোমান ক্যাথলিক খ্রীস্টানরাও মালা জপ্ করেন। আমি আগেই বলেছি ঈশ্বরকে লাভ করতে গেলে সর্বাগ্রে গ্রহদোষকে কাটাতে হবে। কারণ গ্রহদোষ থাকলে ঈশ্বরের আর্শীবাদ পাওয়া দুরুহ হয়ে ওঠে। গ্রহদোষ কাটাবার জন্য নানরকম প্রক্রিয়া আছে।তার মধ্যে মালা ব্যবহার ও মালা জপ্ অন্যতম। মুক্তার মালা সম্পর্কে আমি আগেই বলেছি। আদি থেকে অনেকে স্ফটিক মালা ব্যবহার করেন। এবং এই বিষয় আমি উপদেশ লাভ করি নেপালে একজন তান্ত্রিক যোগীর নিকট। তিনি আমাকে বলেন-

“পদ্মবীজাদিভির্মালা বহির্যাগে শৃণুষ্ব তাঃ।

রুদ্রাক্ষ-শঙ্খ-পদ্মাক্ষ-জীবপ্রত্রক-মৌক্তিকৈঃ।।

স্ফটিকৈর্মণিরত্নৈশ্চ সৌবর্ণৈর্বিদ্রুমৈস্তথা।

রাজতৈঃ কুশমূলৈশ্চ গৃহস্থস্যাক্ষমালিকা।।”

তুমি মনে রাখবে- “পদ্মবীজের মালা সবচেয়ে প্রশস্ত। রুদ্রাক্ষ, শঙ্খ, পদ্মবীজ, জীবপুত্রিকা, মুক্তা, স্ফটিক, মণি, রত্ন সুবর্ণ, প্রবাল, রৌপ্য এবং কুশমূল গ্রহীদের পক্ষে শ্রেষ্ঠ জপ্ মালা।

Mantra-মন্ত্র

মন্ত্রঃ

দেড়যুগ আগের কথা। হিমালয়ের জটাজাল এলিয়ে পড়েছে কামাখ্যা পাহাড়ের কোলে। বিপাশা, শুকদেব, শতদ্রু বা কর্ণালী আমার তৃষ্ণা মেটাতে পারলো না। হিমালয়ের শতশত তীর্থপথের পথিক আমি পথে পথে পেয়েছি বাঁধা। পাই তাতে ক্লান্ত নই। আমি চাই আমার সেই বস্তু- যা অপ্রাপ্য বলে কথিত। কোলকাতার কালীঘাট, কেওড়াতলা, নিমতলা, কাশীপুর, শ্মশান ঘাট ধরে এই গঙ্গার তীরে শান্তিপুর, নবদ্বীপ, উদ্ধারণপুর ঘাটের মহাশ্মশানগুলিতে ঘুরলেম। দেখলেম বহু সাধক, সাদিকা, শ্মশানচারী শ্মশানচারীণী, ভৈরব-ভৈরবী- তারা দিলেন অনেক মন্ত্র-তন্ত্র-কবচ-যন্ত্র। কিন্তু তাদের ব্যবহার বিধি জানালেন না।তখনো তারাপীঠে যাই নি। সোজা গঙ্গার চড়াই ও উৎরাই দিয়ে পাটনা, বেনারস, এলাহাবাদ, হরিদ্বার। না-মনোবাঞ্ছা পূর্ণ হলো না। তবে হ্যাঁ- হরিদ্বারের চণ্ডীপাহাড়ে কোলো এক সাধুর স্নিগ্ধ আলিঙ্গন পেলেম। তিনি বললেন- “যা, তুই তারাপীঠে।” তার কথা শুনেওশুনিনি প্রথমে। পাঞ্জাব-হিমাচল প্রদেশ, জম্মু-কাশ্মীর ঘুরে এলুম প্রয়াগে। সেখান থেকে বেনারস। তারপর একদিন তারাপীঠে। তারামায়ের চরণতলে দ্বারকানদীর চওড়া বালুচরে ক্যাকটাস্ গাছগুলি অসুর মুণ্ডের মতো ছড়িয়ে আছে। আর শ্মশানের পোড়া কাঠ, আধ্‌পোড়া অস্থি, করোটি নিয়ে দূরে দূরে ডেরা পেতেছেন তান্ত্রিকরা আউল-বাউল আর অঘোরপন্থীরা। সেখানে একদিন নিশীথ রাতে কার রুদ্রসুন্দর কণ্ঠসুরে আমার ধ্যানের জড়তা কাটলো।
“…………সিংহসনমনন্যধীঃ।
তত্র সংভাব্যতে শয্যা জ্ঞানানন্দস্বরুপিণী।।
শিবং তত্র বিভাব্যাথ সর্ব্বালঙ্কারভূষিতম্।
দিগম্বরং মহাকায়মুন্মত্তং কামভাবতঃ।
শয্যায়ামূর্দ্ধলিঙ্গঞ্চ ভাবয়েৎ সাধকাগ্রণীঃ।।
এ-কার কণ্ঠস্বর?
আসন থেকে উঠে পড়লুম। অন্ধকারে পথ চিনি না। সেই উদাত্ত কন্ঠস্বর যে আমার গতিপথকে চিনিয়ে দিচ্ছে। ঐ-ঐ যে দুটো জ্যোতি
জ্বলছে নিবিড় আঁধারে। সে দুটি জ্যোতি হল জ্যোতির্ময় সাধকের নেত্রদ্বয়। তিনি যে আমাকে কিছু বলবার জন্যই এই পাঠ করছেন। মাথানত করে দাঁড়ালেম তার সামনে। একটা ধুনি জ্বলছে। তার ম্লান আলোতে দেখলুম- কী জ্যোতিভরা মূর্তি তাঁর। বললেন,
“মন্ত্র জপ্ কর। মন্ত্র শেখা নর-নারীকে। সব ভাগ্যদোষ কেটে যাবে। আগে ধ্যান-পরে মন্ত্র। যা- যা।”
-কোথায় যাবো?
-কামাখ্যায়।
এই সেই কামাখ্যা।
এই সেই তন্ত্রের প্রাচীন পীঠস্থান।
এখানেই শিব সাধনা করেছেন। এখানে মীননাথ বন্দী হয়েছেন। এখানেই গোরক্ষনাথ যোগসাধনায় সিদ্ধি লাব করেছেন। এখানেই আমি এক মহাতান্ত্রিক বাবার মুকে শুন্‌লেম্-
“রক্তবস্ত্রাং বরোদ্যুক্তাং সিন্দুরতিলকান্বিতাম্।
নিষ্কলঙ্কাং সুধাধাম- বদনকম লোকজ্জ্বলাম্।।
স্বর্ণাদিমণি মাণিক্যভূষণৈভূষিতাং পরাম্।
নানারত্নাদি- নির্ম্মাণ- সিংহাসনোপরিস্থিতাম্।।
হাস্যবক্ত্রাং পদ্মরাগ- মণিকান্তিমনুত্তমাম্।
পীনোত্তুঙ্গ- কুচাং কৃষ্ণাং শ্রুতিমূল গতেক্ষণাম্।।
কটাক্ষৈশ্চ মহাসম্পদ্দায়িনীং হরমোহিণীম্।
সর্ব্বাঙ্গুসুন্দরীং নিত্যাং বিদ্যাভিঃ পরিবেষ্টিতাম্।।”
মনে হল এখানেই আমার মনোবাঞ্ছা পূর্ণ হবে। এখানেই বেদ তন্ত্র-মন্ত্র সবের সার লাভ হবে। এখানেই জ্যোতিষ বিদ্যা শিক্ষা সার্থক হবে।
এখানেই এক ভৈরবী আমাকে শিক্ষা দেন। তাই এখানে ব্যক্ত করছি।তিনি বললেন, রত্ন-কবচ-যন্ত্র ও স্তোত্র পাঠ তন্ত্রেরই অঙ্গ এবং ঋগ্বেদ থেকে মহাভারত পর্যন্ত যে সব মন্ত্র ও স্তোত্র দেখতে পাও সবই বগবানের আশীর্বাদ পেতে হলে চাই তন্ত্রের উপর নির্ভরশীলতা। শোনা মহাভারতের বনপর্বে যুধিষ্ঠিরকে মার্কণ্ডেয় মুনি কার্তিক স্তোত্র শোনাচ্ছেন। আর এই স্তোত্র পাঠের কি কি ফল লাভ হয় তাও ব্যক্ত করেছেন।এবং এইসব গ্রহরা কার্তিকের অধীন। মহাভারতে তা পাওয়া যায়। মহাভারতে “পুরুষাশ্চৈব যে গ্রহাঃ”তা হল স্কন্দগ্রহ। এই পুরুষ গ্রহদের মন জয় করবার জন্য স্থানীয় দ্রব্য, ধূপ, কজ্জ্বল, বলিদান এবং অর্ঘ্য দিয়ে কার্তিকের পূজা করতে হয়। এবং কার্তিকের আদেশে এই সব গ্রহরা নরনারীর মঙ্গল, আয়ু ও বল বৃদ্ধি করে।
মহাভারতের বনপর্বে আরো বলা হয়েছে, “নরনারীর ষোড়শ বছর বয়স পর্যন্ত স্ত্রী গ্রহরা তাদের অনিষ্ট করবার জন্য তৎপর থাকে। এবং ষোল বছর বয়সের পর পুরুষ গ্রহরা তাদের অমঙ্গল করাবার চেষ্টা করে। এই সব গ্রহকে বেদব্যাস কয়েকটি ভাগে ভাগ করেছেন দেখো।
যে নরনারী জাগরিত অবস্থায় বা ঘুমের ঘোরে স্বপ্নে দেবতা দেখে ও সত্ত্বর উন্মত্ত হয় তখন জানবে দেবগ্রহ তাকে ভর করেছে।
আর জাতরিত বা ঘুমন্ত অবস্থায় যে পিতৃলোক দেখে তাকে পিতৃগ্রহ ভর করেছে।
যে লোক সর্বদা স্বপ্নের ঘোরে ভুল বকে তাকে সিদ্ধ গ্রহ ভর করেছে।
আর যে জাগ্রত অথবা ঘুম ভয়ের স্বপ্ন দেখে তাকে রাক্ষস গ্রহ বলেছেন।
এই সকল গ্রহদের তিন ভাগে ভাগ করা হয়। যথাঃ-
ক্রীড়াভিলাসী গ্রহ, ভোলাভিলাষী গ্রহ এবং কামাভিলাষী গ্রহ।
এই জন্য সংযত চিত্তে, ইন্দ্রিয়দমনশীল, পবিত্র, সদা আলস্যহীন আস্তিক ও মহাদেবের প্রতি আস্থাশীল হয়ে কার্তিকের পূজা করলে সব গ্রহ ভয় দূর হয়। প্রতি নর-নারীর উচিত কর্তিক যন্ত্র ধারণ করা।
মহাভারতে বনপর্বে মার্কণ্ডেয় মুনি যে “কার্তিক গাথা” গেয়েছেন তা সর্বদা মনে রাখবে।

Use the Stone, Mantra & Talisman to get back to luck (রত্ন, মন্ত্র ও কবচে ভাগ্য ফেরান)

রত্ন মন্ত্র ও কবচে ভাগ্য ফেরানোঃ

রত্ন-মন্ত্র বর্ণনাঃ

রত্ন ব্যবহার হাজার হাজার বছর ধরে চলে আসছে। সভ্যতার আলোকে উদ্ভাসিত হয়েছে যখন যে সব দেশ, নিজেদের নব নব রুপে সাজানোর জন্য নরনারী তখন থেকে সোনা রুপার গহনার সঙ্গে রত্ন ধারণ করা শুরু করে। ইতিহাস পূর্বকালে আদিম নরনারী বিবস্ত্রাবস্থায় বসবাস করলেও, তারা তাদের নগ্ন অঙ্গ-প্রত্যঙ্গে নানা প্রকার উল্কি আঁকতো, আর কণ্ঠে, বাহুতে এবং কোমরে পরতো নান প্রকার জীবজস্তর হাড়, দাঁত প্রভৃতি। সঙ্গে ফলের বীজও ধারণ করতো। এবং দেহের উল্কি থেকে শুরু করে কণ্ঠাদির হাড় তারা দলের পুরোহিতদের দ্বারা মন্ত্রপূত করে নিতে ভুলতো না। কারণ সেই সভ্যতাবিহীন মানুষের দল তখন থেকেই মনে মনে দৃঢ় বিশ্বাস করতো- এইগুলি মন্ত্রের দ্বারা শুদ্ধ করে নিলে কোনো অপদেবতা, কোনো দুর্যোগ এবং কোনো বাধা বিপত্তি তাদের ক্ষতি সাধন করতে পারবে না। এমন কি তারা নিবিড় অরণ্যের মধ্যে নানা প্রকার সরু- মোটা লতা দেহে ব্যবহার করতো মন্ত্রশুদ্ধি করে। সে যুগের মানুষ তাদের ক্ষীণ বুদ্ধি দৃষ্টিতে জেনেছিলো, জন্মের মুহূর্ত থেকে তার জীবনে নানা কষ্ট ও বাধা প্রতীক্ষা করছে তাকে আঘাত হানবার জন্য। কিন্তু সেই বাঁধাগুলির হাত থেকে ত্রাণ পাবার জন্য সে নানা মন্ত্র শেখে ও নানা বস্তু ব্যবহার করে। আর দলের পুরোহিতের স্বল্পজ্ঞান তাদের জীবনকে সুন্দর করবার গোপন কথা হয়তো জেনেছিলো নিভৃতে নানা চিন্তার দ্বারা।
এই মানব-মানবী নানরকমের পাথরও দেহে পরতো।
তারপর বহুকাল পার হল। তাম্র প্রস্তর যুগের পর থেকেই মানবজাতি নানা দতপ্রকার কারুকার্য করা অলংকার ও তার সঙ্গে রত্ন ব্যবহার করে। এই ব্যবহার নিছক দেহ-সজ্জা নায়- সেই ফেলে আসা দিনের সরণী ধরে তাদের মনে প্রবেশ করেছিলো ভবিষ্যৎ জীবনের অজানা আতঙ্কের অবর্ত থেকে উদ্ধার পাবার প্রয়াশ। তাই তারাও পূর্বপুরুষদের প্রদত্ত মন্ত্রশুদ্ধিতে প্রাণবন্ত অলংকার ও রত্নের ব্যবহার রীতি ও নানা মন্ত্র এবং মূল ধারণ করার আগ্রহে অগ্রাহান্বিত হয়ে পড়ে।
বিশ্বের সুপ্রাচীন সভ্যতা সিন্ধুজনপদ সভ্যতার যুগে সেই মানব মানবী ব্যাপকভবে নানা ধাতুর অলংকার ও রত্ন ধারণ করতো; করতো নান দেব-দেবীর পূজা, নানা রকমের যন্ত্রের দ্বারা নিজেদের রক্ষা করবার চেষ্টা। তার সেঙ্গ এলো মানব জাতিকে ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি করবার জন্য দৈবের সাহায্য লাভের প্রচেষ্টা।সেটাই লিঙ্গদেববাদ অথবা লিঙ্গ-যোনির নিবিড় আরাধনা।যা সূর্য রশ্মির মতো ছড়িয়ে পড়লো মেসোপটেমিয়া, সুমেরীয়, কাবালা ও মিশরের বুকে। তখনো কিন্তু বহিরাগত আর্যদের কোন স্পন্দন ভারতের বুকে পড়েনি।
সিন্ধুজনপদ সভ্যতাকে যদি ঐতিহ্যমণ্ডিত সভ্যতার ঊষালগ্ন ধরা হয় তাহলে দেখবো সেখান থেকে জ্যোতিষ, তন্ত্র-মন্ত্র ও পূজার অরুণের হলুদ ঝরা দিন। কোথায় তখন বহিরাগত আর্যদের আসার আশা? মনে রাখতে হবে এবং আমি বার বার বলছি সিন্ধুজনপদ সভ্যতাই পৃথিবীর বুকে যে নতুন ও চিরন্তন প্রথার সূত্রপাত করলো তা হলো তন্ত্র ও মন্ত্রের পরিপূর্ণতা। আদিম মানুষ নগ্নদেহে বৃক্ষের রস দিয়ে যে সব উল্কি পরতো এবং দেহে জীবহাড় ও দাঁত পরতো তা কিন্তু তন্ত্রের উদয়লগ্ন। মারণ, উচাটন, বশীকরণ, শান্তি ও মিলনের প্রচেষ্টা তার মধ্যে ছিলো তাতে সন্দেহ নেই। সেই বস্তুকেই আরো কুলীন করলো সিন্ধুজনপদ সভ্যতা। এই সভ্যতার যে লিপি পাঠ এখনো উদ্ধার হয়নি তাতে এটা কিন্তু প্রমাণিত হয় না- তারা বহিরাগত আর্যদের চেয়ে অনর্বর চিন্তাশক্তি নিয়ে বাস করতো। তারা যে অট্টালিকা, যে উপাসনাগার, যে মাটির মূর্তি ব্রোঞ্জের মূর্তি ও অলংকার এবং যে সব প্রতীক ব্যবহার করতো বা তৈরি করতো তাতে তাদের চিন্তাশক্তির সূক্ষ্মাতাই বোঝায়। এবং তারা শিখেছিলো অতি গোপন বিদ্যা ও পূজা। তা হলো জ্যোতিষ ও তন্ত্র।
পাশ্চাত্য ঐতিহাসিকরা ভারত সম্পর্কে সর্বদাই ইতরবিশেষ কথা বলে চলেন। তাঁরা যতই প্রমাণ করবার চেষ্টা করেন বহিরাগত আর্যরাই ঋগ্বেদ রচনা করে ভারতের আদিম মানুষকে সভ্যতার আলোকের সামনে এনেছেন, ততই এই সব পণ্ডিতদের নয়ন সম্মুখে প্রতিভাত হয় সিন্ধুজনপদ সভ্যতা। তখন আমাদের মনে হয় এই সব প্রাচ্যবাদীরা ককত সংকীর্ণমনা ও কত নীচু জাতের নিন্দুকের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছেন।
বেদ বহিরাগত আর্যদের সৃষ্টি হলেও তাদের উপর সিন্ধুজনপদ সভ্যতার প্রভাব অনেক পড়েছে। আমাদের মনে রাখতে হবে- বহিরাগত আর্যরা ছিলো পশুপালক ও কৃষিসভ্যমানব। তারা তখনো নগর সভ্যতাকে চিন্তা করতে পারেনি। আর অপরদিকে সিন্ধুজনপদ সভ্যতা একাধারে নগর জীবনের সঙ্গে কৃষিজীবন ও পশুপালকের জীবনের সমন্বয় সৃষ্টি করতে সক্ষম হয়েছিল। তাই তারা জ্যেতিষ ও তন্ত্রকে এতোখানি প্রকাশ করতে পেরেছিলো।
বেদের আর্যরা অবশ্য ভাগ্যকে সুপ্রসন্ন করাবার জন্য উন্মুখ হয় কিন্তু এই বিদ্যা শিখেছিলো সিন্ধুজনপদ সভ্যতার কাছ থেকে।তারা অলংকার ও নানাবিধ রত্নও মন্ত্রপূত করে ব্যবহার করা শিখেছিলো। তাদের যে ভবিষ্যৎ বক্তা তারা বরতে ঋষি নাম পেলেও পশ্চিম এমিয়াতে এরা ছিলে Magi নামে পরিচিত।এই সম্প্রদায় নর-নারীর ভাগ্য বিচার করে অশুভ ভাবকে নষ্ট করবার জন্য রত্ন, ধাতু ও মন্ত্র দ্বারা শোধিত বস্তু ব্যবহার করতে দিতেন। এই জন্য তাঁরা ছিলেন সমাজে সবার পূজ্য।
এই সব তন্ত্রমন্ত্র এবং রত্ন ধারনের প্রচার বৈদিক যুগেও ছিলো। আমাদের মনে রাখা দরকার বেদের ক্রিয়াকাণ্ডই তন্ত্রের বাহক মাত্র। পার্থিব বস্তুকে সুন্দরভাবে লাভ করাই এই ক্রিয়াকাণ্ড। এই ক্রিয়াকাণ্ডেরে মন্ত্রলোতে আমরা দেখি-ইন্দ্র, বরুণ, রুদ্র প্রভৃতি দেবতার কাছে শত্রুবিনাশের জন্য অধিক শস্যের জন্য, ভূমির ও নারীর উর্বরতা শক্তি বৃদ্ধির জন্য, ভাগ্যকে সুপ্রসন্ন করবার জন্য আকুল প্রার্থনা ও তার সঙ্গে সঙ্গে যজ্ঞে হবিঃ দোয়া এই দাও দাও মন্ত্রের মধ্যে তন্ত্রের হিরণ্যগর্ভ মত্যের দ্বারা আবৃত হয়ে আছে। বিভিন্ন রোগ থেকে উদ্ধারের জন্য নানা মণির ব্যবহার, নানা মন্ত্রের দ্বারা হোম করা ও কবচ ধারন প্রথা সুন্দর ও স্পষ্ট হয়ে উঠেছে অথর্ববেদে। সেখানে জ্যোতিষ ও তন্ত্র নিজস্ব আসন লাভ করেছে। যেমন অথর্ববেদের দশম খণ্ডের প্রথম অণুবাকে দেখি- বরণ নামক মণির প্রশংসা, ধারণবিধি, সর্পবিষের মন্ত্র ও চিকিৎসা, শান্তি কর্মানুষ্ঠান, তৃতীয় ও চতুর্থ অণুবাকে দেখি শক্রনাশাদি কাজে নানারকম মন্ত্র ও মণি ধারণের বিধান; ঙ্কম্ভ নামক সনাতন দেবতার স্তুতি ও শ্রেষ্ঠত্ব প্রতিপাদন, পঞ্চম অণুবাকে শতৌদন যজ্ঞের মন্ত্রাদি এবং দেবীরুপা গভীর স্তুতি। উক্ত বেদের একাদশ কাণ্ডের প্রথম, দ্বিতীয়, তৃতীয় ও পঞ্চম অনুবাকে আয়ুষ্কামনায় বিবিদ মন্ত্র, শত্রুজয়ের মন্ত্র ইত্যাদি। শুধু তাই নয়-অথর্ববেদে দেখি বন্ধ্যা নারীর পুত্র হবার উপায়, মন্ত্র, যজ্ঞ, মণি ধারণ, মহাশান্তিকর্ম, অভয় প্রার্থনা, শস্যগৃহের রক্ষা, কবচ, জঙ্গিড়মণি ধারণ প্রভৃতির মন্ত্র।
মহাভারতের যুগে জ্যোতিষ শাস্ত্রও তন্ত্র শাস্ত্র বিরাটভাবে উৎকর্ষতা লাভ করেছিলো।তা আমি এই গ্রন্থের মধ্যে আলোচনা করেছি।এখন আমি আপনাদের কাছে রত্ন ও মন্ত্রের গোপন কথার প্রথম পাঠ দেবার চেষ্টা করবো।তা হলো আমার দীর্ঘদিনের অভিজ্ঞতা, পুরাণ ইতিহাস ও তন্ত্র গ্রন্থ থেকে নেওয়া।

ব্যবহারযোগ্য রত্নাদির নামঃ

আমরা চুনী, চন্দকান্তমণি, প্রবাল, পান্না, পোখরাজ, হীরা, নীলা, গোমেদ ও বৈদুর্যমণি- রত্নকেই শ্রেষ্ঠ বলে জ্ঞান করি।